চট্টগ্রাম, , শুক্রবার, ৩ ডিসেম্বর ২০২১

admin

লোহাগাড়ায় বার আউলিয়া বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ ছাত্রলীগের পাল্টাপাল্টি কমিটি ঘোষণা

প্রকাশ: ২০১৭-০৯-১৩ ১৭:২১:১৮ || আপডেট: ২০১৭-০৯-১৩ ১৭:২২:৫৪

নীরব জসীম / আলাউদ্দিন, লোহাগাড়া অফিস :  লোহাগাড়া উপজেলার বার আউলিয়া বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ ছাত্রলীগের কমিটি নিয়ে উপজেলা ছাত্রলীগ দু’ অংশে বিভক্ত। গত ৬ সেপ্টেম্বর উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক রিদুয়ানুল হক সুজন ও ২ যুগ্ন আহবায়ক এ কে এম পারভেজ ও তৌহিদুল হাসান স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তীর মাধ্যমে বার আউলিয়া বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণা করা হয়।

উক্ত কমিটিতে মোঃ সোহেল তালুকদারকে সভাপতি ও এনামুল হক রোমনকে সাধারণ সম্পাদক করে ১০ সদস্য বিশিষ্ঠ কমিটি ঘোষণা করে এক মাসের মধ্যে পুর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করার নির্দেশ দেয়। অপর দিকে গত ৯ সেপ্টেম্বর এই কমিটিকে অবৈধ ঘোষণা করে ছাত্রলীগের যুগ্ন আহবায়ক মিজানুর রহমান মিজানের নেতৃত্বে কলেজ প্রাঙ্গণে এক প্রতিবাদ সভাও মিছিল বের করে।

পরে গতকাল ১৩ সেপ্টেম্বর যুগ্ন আহবায়ক মিজানুর রহমান মিজান, তাজ উদ্দিন ও মোরশেদ আলম নিবিল সাক্ষরিত পাল্টা কমিটি ঘোষণা করে। উক্ত কমিটিতে মোঃ আরিফুল ইসলামকে সভাপতি ও মোঃ হাবিবুর রহমানকে সাধারণ সম্পাদক করে ১১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি আগামী এক বছরের জন্য অনুমোদন দেয়। এতে উপজেলা ছাত্রলীগ দু’ অংশে বিভক্তি হয়ে যায়। ফলে যে কোন সময় রক্তক্ষয়ি সংঘর্ষের আশংকা করছে রাজনৈতিক মহল। এব্যাপারে উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক রিদুয়ানুল হক সুজন প্রতিবেদককে জানান, একটি বিশেষ মহলকে খুশি করার জন্য বার আউলিয়া বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মাহবুবুর রহমান বাপ্পী হত্যা মামলার আসামীকে যুগ্ন আহবায়ক সাজিয়ে এই কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। যা সম্পূর্ণ অবৈধ এবং আহবায়কের অনুমোদ ছাড়া কমিটি কোন দিন বৈধ হতে পারেনা। পক্ষান্তরে আমাদের অনুমোদিত কমিটিতে আহবায়কসহ ২ জন যুগ্ন আহবায়কের স্বাক্ষর রয়েছে। যা সম্পূর্ণ গণতান্ত্রিক নিয়মে অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

অপরদিকে যুগ্ন আহবায়ক মিজানুর রহমান মিজান বলেন, আমাদের স্থানীয় প্রতিনিধি সাংসদ প্রফেসর ড. আবু রেজা মোঃ নেজামুদ্দিন নদভী ও আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দের সাথে আলাপের মাধ্যমে বার আউলিয়া বিশ্ব বিদ্যালয় কলেজ ছাত্রলীগের কমিটি অনুমোদন চাইলে বর্তমান আহবায়ক রিদুয়ানুল হক সুজন কারও সাথে আলাপ না করে এককভাবে কমিটি ঘোষণা করে। পরে চাপের মুখে ২ যুগ্ন আহবায়ককে ম্যানেজ করে স্বাক্ষর করিয়ে নেয়। তাই আমরা প্রতিবাদ স্বরুপ পাল্টা কমিটি ঘোষণা করি। আহবায়কের স্বাক্ষর ছাড়া কিভাবে কমিটি অনুমোদন হয় এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, অগণতান্ত্রিকভাবে বর্তমান আহবায়ক কমিটির অনুমোদন দেওয়ায় আমরা যুগ্ন আহবায়ক ও আহবায়ক কমিটির সদস্যরা মিলে বর্তমান আহবায়ককে অবাঞ্চিত ঘোষণা করে এই কমিটির অনুমোদন দিয়েছি।

উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক সালা উদ্দিন হিরু’র সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, আমি কয়েকদিন ধরে ব্যক্তিগত কাজে শহরে থাকায় কমিটি সম্পর্কে অবগত নয়। যেহেতু আমি জানিনা সেহেতু কোন মন্তব্য করতে পারছিনা। এদিকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এনিয়ে তীব্র সমালোচনার ঝড় ওঠেছে এবং ছাত্রলীগের দু’ গ্রুপে বিভক্তির আশংকা প্রকাশ করছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *