চট্টগ্রাম, , শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪

admin

সিবিএ’র  শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে শ্রমিক-কর্মচারীদের দাবী পূরণে সিটি মেয়রের ঐক্যমত

প্রকাশ: ২০১৭-১১-১৯ ১৪:৪২:৩৬ || আপডেট: ২০১৭-১১-১৯ ১৪:৪২:৩৬

স্টাফ রিপোর্টার :

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন শ্রমিক-কর্মচারী লীগ (সিবিএ)’র নতুন কমিটির শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে সিবিএ’র পক্ষ থেকে দেয়া ১২ দফা দাবী পূরণের ব্যাপারে সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন ঐক্যমত পোষণ করেছেন। তিনি তার বক্তব্যে শ্রমিক-কর্মচারীদের দাবী পূরণে নিজের ইতিবাচক অবস্থান ও ভূমিকা পালনের প্রত্যাশা ব্যক্ত করেছেন। 

সিটি মেয়র  বলেছেন, ২৩৩ কোটি টাকা ৬২ লাখ টাকা ব্যয়ে পরিচ্ছন্ন বিভাগে কর্মরত হরিজন সম্প্রদায়ের উন্নত জীবন মান নিশ্চিতকরণের লক্ষ্যে ১৪তলা বিশিষ্ট ৭টি ভবন নির্মাণ করা হবে।এসব ভবনে মোট ৮৩২ টি হরিজন পরিবার স্থায়ী ভাবে বসবাস করতে পারবে।মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা প্রত্যেকটি সিটি কর্পোরেশনে কর্মরত পরিচ্ছন্ন কর্মীদের জন্য এই আবাসন বাস্তবায়ন প্রকল্প গ্রহণ করেছেন।

তিনি বলেন, ডোর টু ডোর বর্জ্য অপসারণ কার্যক্রমের জন্য ১ হাজার ৭শ ১৪জন কর্মী নিয়োগ দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে হরিজন সম্প্রদায়ের ৮’শ জন , কমন জেন্ডার (উভয়লিঙ্গ) আছে ৬ জন। ভবিষ্যতে কাজের মান ও আচরণ বিবেচনা করে আরো কমন জেন্ডার নিয়োগ দেয়া হবে।এসব কর্মীদের জন্য বেতন,উৎসব বোনাস প্রদান,ইউনিফরম,শীত বস্ত্র,নিরাপত্তা সামগ্রী প্রদানসহ নানা ভাবে প্রণোদনা দেয়া হচ্ছে। সিটি মেয়র ব্যক্তিগত তহবিল থেকে গতবছরের মত এবারও তাদেরকে শীতবস্ত্র প্রদানের প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেছেন। তাছাড়া কর্মরতদের জন্য ২ লাখ টাকা মৃত্যুকালিন অনুদান ও চাকুরি থেকে অবসর গ্রহণ পরবর্তী দ্রুত যাবতীয় পাওনা পরিশোধের ব্যবস্থা করা হয়েছে। তিনি বলেন, ২০০৫ সাল থেকে ২০১৪ সালের মধ্যে মৃত্যুবরণকারীদের সমস্ত পরিশোধ করা হয়েছে। বাকিদের পাওনা পরিশোধের কার্যক্রম অব্যাহত আছে।

 

আজ সকালে চসিক বঙ্গবন্ধু চত্বরে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন শ্রমিক-কর্মচারী লীগ (সিবিএ)’র নবগঠিত কমিটির শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন এসব কথা বলেন।

সিটি মেয়র এ প্রসঙ্গে বলেন, অনেকে পাওনা আদায়ের জন্য শ্রমিক নেতাদের উৎকোচ প্রদান করে থাকেন।আবার শ্রমিক নেতারাও প্রাক্তন শ্রমিকদেরকে পাওনা আদায় করার জন্য এক্ষেত্রে নানা প্রবঞ্চনা,অনিয়ম করে থাকেন বলে অভিযোগ আছে। তিনি শ্রমিকদেরকে এ ধরণের কোন ব্যক্তি বা নেতার বিরুদ্ধে অভিযোগ থাকলে সরাসরি ফোনে বা ম্যাসেজ পাঠিয়ে তাকে অবহিত করার জন্য আহবান জানান।তিনি এ ব্যাপারে কঠোর সিদ্ধান্ত নিবেন বলে নেতাদেরকে সতর্ক করে দেন।

সিটি মেয়র বলেন,অর্গানোগ্রাম অনুমোদনের পর খালি পদ জৈষ্ঠ্যতার ভিত্তিতে স্থায়ীকরণ করা হবে। তাদের সন্তানদের পড়ালেখার জন্য বিনা বেতন ও ফি-তে অধ্যয়নের ব্যবস্থা করা হয়েছে।তাছাড়া চাকুরিতে নিয়োগের ক্ষেত্রে ৩০ শতাংশ পোষ্য কোটা নির্ধারণের দাবীর ব্যাপারে তিনি বলেন, পোষ্য কোটায় চাকুরি দেয়ার ব্যাপারে যাচাই বাছাই সাপেক্ষে এবং প্রয়োজনে আরো বাড়ানো বা কমানোর বিষয়টি বিবেচনা করা হবে।তবে পরিচ্ছন্ন কর্মীদের ক্ষেত্রে এ কোটা প্রায় ৭০ শতাংশ পর্য ন্ত বাড়ানো হয়েছে।

সভায় চসিক সিবিএ শ্রমিক কর্মচারী লীগ সিটি মেয়রের কাছে ১২ দফা দাবী পেশ করেন।সিটি মেয়র সিবিএ’র সকল দাবী পূরণের ক্ষেত্রে ঐক্যমত পোষণ করেন।

সভায় জাতীয় শ্রমিক লীগ যুগ্ম সম্পাদক আলহাজ্ব শফর আলী,মহানগর শাখা সভাপতি বখতেয়ার উদ্দিন খান,মহানগর আওয়ামী লীগ সদস্য আবদুল লতিফ টিপু,কাউন্সিলর সাইয়েদ গোলাম হায়দায় মিন্টু,মো গিয়াস উদ্দিন, হাসান মুরাদ বিপ্লব,এএফ কবির মানিক,হাবিবুল হক,শৈবাল দাশ সুমন,জহুরুল আলম জসিম,আনজুমান আরা, সিবিএ সভাপতি ফরিদ আহম্মদ, সাধারণ সম্পাদক মোরশেদ আলম চৌধুরী প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *