চট্টগ্রাম, , বৃহস্পতিবার, ১১ আগস্ট ২০২২

admin

চসিকের নিজস্ব জায়গায় ওয়াটার এইড ও কিমবার্লির অর্থায়নে ৫৩ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মিত আধুনিক টয়লেট উদ্বোধন 

প্রকাশ: ২০১৮-০৩-২৯ ০০:১৪:৪১ || আপডেট: ২০১৮-০৩-২৯ ০০:১৪:৪১

বীর কণ্ঠ ডেস্ক :

নগরীর ১৫ লাখ ভাসমান মানুষের টয়লেট, গোসল ও সুপেয় পানির সুযোগ সৃষ্টি করবে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন (চসিক)। প্রতিদিন সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত নগরীতে প্রায় ১০-১৫ লাখ মানুষ দৈনন্দিন কাজ সেরে নিজ নিজ গন্তব্যে চলে যায়। বিশাল এ জনগোষ্ঠীর সুবিধার্থে চসিক আধুনিক পাবলিক টয়লেট নির্মাণ কর্মসূচি বাস্তবায়ন করছে।

বুধবার (২৮ মার্চ) লালদীঘির দক্ষিণ-পূর্ব পাড় এবং কেসি দে সড়কের টিঅ্যান্ডটির দেয়ালের বাইরে আধুনিক শৌচাগারের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন এসব কথা বলেন।

চসিকের নিজস্ব জায়গায় ওয়াটার এইড ও কিমবার্লির অর্থায়নে ৫৩ লাখ টাকা ব্যয়ে এ টয়লেটগুলো নির্মাণ করা হয়।

টয়লেট দুইটিতে নিরাপত্তার জন্য সিসিটিভি ক্যামেরা ও লকার রুম ছাড়াও ৫ টাকার বিনিময়ে টয়লেট, ১০ টাকার বিনিময়ে গোসল, ৫ টাকার বিনিময়ে লকার রুম ব্যবহার এবং ১ টাকার বিনিময়ে সুপেয় পানি পান করার সুবিধা রয়েছে। এতে প্রতিবন্ধীদের হুইল চেয়ারে টয়লেট ব্যবহার এবং নারীর জন্য নিরাপদ ব্যবস্থা রয়েছে।

ওয়াটার এইড ও কিমবার্লির অর্থায়নে আরও একটি টয়লেট নির্মাণাধীন রয়েছে। এ ছাড়া জায়গাপ্রাপ্তি সাপেক্ষে আরও ৭টি আধুনিক টয়লেট নির্মাণের পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে।

উদ্বোধন অনুষ্ঠানে স্থানীয় কাউন্সিলর জহর লাল হাজারী, কাউন্সিলর মো. গিয়াস উদ্দিন, শৈবাল দাশ সুমন, সাহেদ ইকবাল বাবু, তৌফিক আহম্মদ চৌধুরী, আঞ্জুমান আরা বেগম, চসিকের ভারপ্রাপ্ত প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আবুল হোসেন, চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের প্রধান নগর পরিকল্পনাবিদ শাহিনুল ইসলাম, ওয়াটার এইডের কান্ট্রি ডিরেক্টর খায়রুল ইসলাম, ডিএসকের যুগ্ম পরিচালক আবদুল হাকিম, চসিকের জনংযোগ কর্মকর্তা মো. আবদুর রহিম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এরপর মেয়র নগরীর লালদীঘির দক্ষিণ পাড়ে সিটি গভর্নেন্স প্রকল্পের আওতায় জাইকার অর্থায়নে ১২ কোটি ৫৭ লাখ ৩০ হাজার টাকা ব্যয়ে নির্মাণাধীন আটতলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কেন্দ্র, সাইক্লোন সেল্টার ও পাবলিক লাইব্রেরির কাজ পরিদর্শন করেন।

এ সময় তিনি কাজের অগ্রগতি ও মান সম্পর্কে সংশ্লিষ্ট প্রকৌশলী ও ঠিকাদারের নিকট অবহিত হন।মেয়র নির্ধারিত সময়ের মধ্যে নির্মাণকাজ শেষ করার তাগাদা দেন।

এ সময় চসিকের ভারপ্রাপ্ত প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আবুল হোসেন, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী আনোয়ার হোসাইন, নির্বাহী প্রকৌশলী ও প্রকল্প পরিচালক ফরহাদুল আলম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।- বাংলানিউজ

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *