চট্টগ্রাম, , শুক্রবার, ১২ আগস্ট ২০২২

admin

রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়সহ সরকারি ওয়েবসাইট হ্যাকড

প্রকাশ: ২০১৮-০৪-১১ ০০:১৯:২৩ || আপডেট: ২০১৮-০৪-১১ ০০:১৯:২৩

বীর কন্ঠ ডেস্ক :

চলমান কোটা সংস্কার আন্দোলনের পক্ষে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ওয়েবসাইটসহ বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ সরকারি ওয়েবসাইট একযোগে হ্যাক করেছে হ্যাকাররা। মঙ্গলবার রাত ১০টার পর থেকে এসব সরকারি সাইটে ব্রাউজ করলে সেগুলো হ্যাক হয়েছে বলে দেখায়। অবশ্য কিছুক্ষণ পর কয়েকটি সাইট সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ নিয়ন্ত্রণে নিতে সক্ষম হয়।

রাত ১০টার দিকে বঙ্গভবনের ওয়েবসাইট (bangabhaban.gov.bd), প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ওয়েবসাইট (www.pmo.gov.bd), জাতীয় সংসদের ওয়েবসাইট (parliament.portal.gov.bd), স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইট (www.mha.gov.bd) বিসিএস প্রশাসনের ওয়েবসাইট (bcsadminacademy.gov.bd) এবং কৃষি মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে (moa.gov.bd) গেলে হ্যাকড দেখায়।

 

হ্যাকাররা ওই সাইটগুলো হ্যাক করার পর উপরে ‘হ্যাকড বাই বাংলাদেশ’ এবং তার নিচে কোটা সংস্কার আন্দোলনে বাংলাদেশের পতাকা হাতে শাহবাগে আলোচিত এক প্রতিবাদীর ছবি দেয়।

 

ছবির নিচে হ্যাশট্যাগ দিয়ে Reform Quota BD, Stop the Genocide, Reform Quota System, Bangladesh, Student Protest, United WE Stand, No_Private or Publice Discrimination, Aamrai BANGLADESH এ ধরনের বেশ কিছু স্লোগান লেখা হয়।

 

 

এসময় ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিকে বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলামের ‘মোরা ঝঞ্ঝার মত উদ্দাম’ গানটি বাজতেছিল-

 

মোরা ঝঞ্ঝার মত উদ্দাম

মোরা ঝর্ণার মত চঞ্চল,

মোরা বিধাতার মত নির্ভয়

মোরা প্রকৃতির মত স্বচ্ছল।।

 

মোরা আকাশের মত বাঁধাহীন

মোরা মরু সঞ্চার বেদুঈন,

বন্ধনহীন জন্ম স্বাধীন

চিত্তমুক্ত শতদল।।

 

মোরা সিন্ধু জোঁয়ার কলকল

মোরা পাগলা জোঁয়ার ঝরঝর।

কল-কল-কল, ছল-ছল-ছল।।

উল্লেখ্য, কোটা সংস্কার দাবিতে রোববার দুপুরে পূর্বঘোঘিত গণপদযাত্রা শেষে শাহবাগ মোড় অবরোধ করে শিক্ষার্থীরা। পরে রাত ৮টার দিকে তাদের ওপর পুলিশ চড়াও হলে সংঘর্ষ শুরু হয়। সোমবার সকাল পর্যন্ত পুলিশ ও ছাত্রলীগের সঙ্গে দুই শতাধিক শিক্ষার্থী ও চাকরিপ্রার্থী আহত হন। এছাড়া শতাধিক আন্দোলনকারীকে আটক করা হয়।

কোটা সংস্কারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুস্পষ্ট ঘোষণা না আসা পর্যন্ত আগের মতো আন্দোলন কর্মসূচি চালিয়ে যেতে মঙ্গলবার ঐক্যবদ্ধ ঘোষণা দেয় আন্দোলনকারীরা। সন্ধ্যায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে এ ঘোষণা দেয় শুরু থেকে আন্দোলনের নেতৃত্ব দেয়া কমিটি।

কর্মসূচি অব্যাহত রাখার ঘোষণা আসতেই হাজার হাজার শিক্ষার্থী ফের রাজু ভাস্কর্যের সামনে জড়ো হতে থাকেন। নিয়মিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে রাত ৯টা পর্যন্ত মিছিল আর স্লোগানে তারা গোটা ক্যাম্পাস মুখরিত করে রাখেন।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *