চট্টগ্রাম, , রোববার, ২৩ জানুয়ারী ২০২২

admin

চট্টগ্রামে বাস কাউন্টার ঘেরাও করে বিক্ষোভ সমাবেশ ও মানববন্ধন কর্মসূচি 

প্রকাশ: ২০১৮-০৭-৩১ ১৭:২৭:২৫ || আপডেট: ২০১৮-০৭-৩১ ১৭:২৭:২৫

বীর কন্ঠ ডেস্ক :

ঢাকার নর্থ-সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী পায়েল হত্যায় জড়িত হানিফ পরিবহনের চালক-হেলপারদের দ্রুত বিচার নিশ্চিত করার দাবিতে চট্টগ্রামে বাস কাউন্টার ঘেরাও করে বিক্ষোভ সমাবেশ ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে সন্দ্বীপের বিক্ষুব্ধ জনতা।মঙ্গলবার বেলা ১১টার থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত ঘণ্টাব্যাপী তারা এই বিক্ষোভ প্রদর্শন করে।

এই সময় তারা হানিফ পরিবহনের চালক, সুপারভাইজার ও হেলপারকে বিচারের মাধ্যমে নিশ্চিত করার দাবি জানান। অন্যথায় রাস্তায় এই পরিবহনটির কোনো বাস চলতে দেয়া হবে না বলে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন তারা।নগরের খুলশী থানা এলাকার গরীবুল্লাহ শাহ মাজার গেইট এলাকায় হানিফ পরিবহনের কাউন্টার ঘেরাও কর্মসূচিটি আয়োজন করে চট্টগ্রামস্থ সন্দ্বীপ অ্যাসোসিয়েশন।

এ সময় বক্তারা বলেন, হানিফ পরিবহনের চালক, সুপারভাইজার ও হেলপারকে দ্রুত বিচারের আওতায় এনে মৃত্যুদণ্ড নিশ্চিত করুন। অন্যথায় সড়কে এই পরিবহনের কোনো বাস চলতে দেয়া হবে না।

বক্তারা আরও বলেন, তারা পায়েলকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করেছে। পায়েল হত্যার দ্রুত বিচার নিশ্চিত করতে হবে। যাতে আর কোনো মেধাবী শিক্ষার্থীকে এমন নির্মমতার শিকার হতে না হয়। কর্মসূচিতে পায়েলের পরিবার, স্বজন, সহপাঠী ও বন্ধুরা অংশ নেন।

 

পায়েলের বাবা গোলাম মাওলা বলেন, আমার আর কোনো দাবি নাই। পায়েলের হত্যায় জড়িতদের মৃত্যু দণ্ড চাই।

 

দৈনিক সমকালের চট্টগ্রাম ব্যুরো প্রধান সরোয়ার সুমনের পরিচালনায় সমাবেশে বক্তব্য দেন, সন্দ্বীপ অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ও নগর আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা বেলায়েত হোসেন, বিএফইউজের সাবেক নেতা জাহিদুল করিম কচি, নগর যুবলীগের আহবায়ক মহিউদ্দীন বাচ্চু, বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশনের ডেপুটি গভর্নর ও বৃহত্তর চট্টগ্রামের সভাপতি আমিনুল হক বাবুসহ আরও অনেকে।

উল্লেখ্য, গত ২১ জুলাই চট্টগ্রাম থেকে ঢাকা যাওয়ার পথে বাস থেকে ফেলে হত্যা করা হয় পায়েলকে। ২৩ জুলাই মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া থেকে তার মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

এই ঘটনায় ২৪ জুলাই পায়েলের মামা গোলাম সারোয়ারদী বাদী হয়ে মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া থানায় হানিফ পরিবহনের বাসচালক জামাল হোসেন (৩৫), সুপারভাইজার জনি (৩৮) ও হেলপার ফয়সালকে আসামি করে হত্যা মামলা দায়ের করেন।এর একদিন পর ২৫ জুলাই তাদেরকে গ্রেফতারের পর আদালতে হাজির করলে পায়েলকে হত্যার কথা স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেয়।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *