চট্টগ্রাম, , বুধবার, ১৭ আগস্ট ২০২২

admin

চট্টগ্রাম- কাপ্তাই সড়কেও শিক্ষার্থীরা, গাড়ি থামিয়ে কাগজপত্র পরীক্ষা  

প্রকাশ: ২০১৮-০৮-০২ ২৩:৩২:৫৮ || আপডেট: ২০১৮-০৮-০২ ২৩:৩২:৫৮

আব্বাস হোসাইন আফতাব,রাঙ্গুনিয়া প্রতিনিধি : 

চট্টগ্রাম-কাপ্তাই সড়কের রাউজানের শেষ ভাগ ও রাঙ্গুনিয়ার প্রবেশ মুখ চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় গেইটের সামনে রাঙ্গুনিয়া ও রাউজানের সাধারণ কলেজ শিক্ষার্থীরা নিরাপদ সড়কের দাবিতে মানববন্ধন করেছে। বৃহষ্পতিবার (২ আগস্ট) সকাল ১০ টার পর রাঙ্গুনিয়া অংশের তাপ বিদ্যুৎ এলাকা থেকে রাউজানের চুয়েট গেইট পর্যন্ত বিপুল শিক্ষার্থী অংশ নেন। মানববন্ধন শেষে শিক্ষার্থীরা রাস্তায় দাঁড়িয়ে চালকদের লাইসেন্স ও যানবাহনের কাগজপত্র পরীক্ষা করে। লাইসেন্স না থাকায় অন্তত দেড়শত সিএনজিচালিত অটোরিক্সা, যাত্রীবাহি বাস ও ট্রাক আটকে দেয় শিক্ষার্থীরা।

বিকেল ৩ টার দিকে রাঙ্গুনিয়া থেকে চট্টগ্রাম শহরে যাওয়ার পথে দুটি সিএনজি চালিত অটোরিক্সা থামানোর চেষ্ঠা করলে চালক শিক্ষার্থীদের ধাক্কা দিয়ে চলে যাওয়ার চেষ্ঠা করে। পরে শিক্ষার্থীরা অটোরিক্সা দুটি ধাওয়া করে দুটি অটোরিক্সার কাঁচ ভাংচুর করে। এসময় গাড়ি চলাচল কিছুক্ষনের জন্য বন্ধ হয়ে যায়। পরে স্বাভাবিক হয়। বিকেল ৪ টা পর্যন্ত রাস্তায় দাঁড়িয়ে গাড়ির কাগজপত্র পরীক্ষা করেন।

বিকেল সাড়ে ৩ টার দিকে তাপবিদ্যুৎ গেইটের রাঙ্গুনিয়া এলাকায় তৌহিদুল আলম আলম নামে এক বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র একটি ট্রাকের কাগজ পত্র দেখতে চাইলে রাঙ্গুনিয়া থানার এক পুলিশ সদস্য  গিয়ে তাঁকে আটক করে হাত কড়া পরিয়ে দেয় বলে অভিযোগ করেন শিক্ষার্থীরা। পরে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভের মুখে তাঁকে সঙ্গে সঙ্গে ছেড়ে দেয়া হয় বলে জানান কয়েকজন শিক্ষার্থী।

নাম প্রকাশে অনৈচ্ছুক রাঙ্গুনিয়া কলেজের এক শিক্ষার্থী বলেন,  “ ১২ টার দিকে রাঙ্গুনিয়া থানার তিন পুলিশ সদস্য সিএনজি চালিত অটোরিক্সা নিয়ে চট্টগ্রাম শহরে যাওয়ার পথে গাড়ি থামিয়ে কাগজপত্র পরীক্ষা করে। পরে গাড়ির রেজিস্ট্রেশন না থাকায় এটি আটকে দেয়া হয়। ”

জানতে চাইলে রাঙ্গুনিয়া থানার এস.আই মো. সফিকুল ইসলাম পিপিএম মুঠোফোনে বলেন, “ তাপবিদ্যুৎ এলাকার রাঙ্গুনিয়া অংশে একা একটি ছেলে ট্রাক থামিয়ে চাঁদা চাইলে এক পুলিশ তাকে আটকায়। পরে কিছু ছাত্র গিয়ে তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র পরিচয় দেন ও মানববন্ধনে অংশ নিতে এসেছেন বলে জানালে তাকে ছেড়ে দেয়া হয়। তবে কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *