চট্টগ্রাম, , বুধবার, ২৯ জুন ২০২২

নীরব জসীম ডেস্ক কন্ট্রিবিউটর

সরকার খালেদা জিয়াকে চিকিৎসা না দিয়ে খারাপ অবস্থার দিকে ঠেলে দিচ্ছে : ব্যারিস্টার সাকিলা ফারজানা

প্রকাশ: ২০১৮-০৯-০৮ ২২:২৫:২৬ || আপডেট: ২০১৮-০৯-০৮ ২২:২৫:২৬

জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম,কেন্দ্রিয কমিটি যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক চট্টগ্রাম উওর জেলার সদস্য ব্যারিস্টার সাকিলা ফারজানা বলেছেন, সরকার আইন সংবিধান উপেক্ষা করে হিংসার রাজনীতি চরিতার্থ করতেই বেগম খালেদা জিয়াকে কারাগারে পাঠিয়েছে। তাকে চিকিৎসা না দিয়ে খারাপ অবস্থার দিকে ঠেলে দিচ্ছে। এখন বিচারের নামে তাকে আরো সাজা দিতে কারাগারে আদালত বসিয়েছে।

তিনি বলেন, বেগম খালেদা জিয়ার মানসিক শক্তি খর্ব করতে না পেরে তাকে শারীরিকভাবে দুর্বল করার চক্রান্ত চলছে। দলীয় নেতৃবৃন্দ ও পরিবারের সঙ্গেও তাকে দেখা করতে দেওয়া হচ্ছে না। যা ইচ্ছে, যতোদিন ইচ্ছে সাজা দিন। কিন্তু তিনি মানসিকভাবে দুর্বল হবেন না। বেগম খালেদা জিয়ার শারীরিক অসুস্থতা আরো গুরুতর করতেই ষড়যন্ত্র চলছে। তাকে ও বিএনপিকে নির্বাচনের বাইরে রাখতেই সব ধরনের ষড়যন্ত্র চলছে। আর তাই এই ভোটবিহীন সরকারের হাত থেকে জনগণ মুক্তি চায়। একটি অংশগ্রহণমূলক ও অবাধ সুষ্ঠু নিরপেক্ষ নির্বাচনের মাধ্যমে এ বাকশালী সরকারের অবসান চায় জনগণ।

প্রতিবেশী রাষ্ট্রগুলোও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন দেখতে চায়।সরকার এখন আতঙ্কে আছে। যে কারণে বিরোধীদের বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে বাঁচার চেষ্টা চলেছে।বিরোধী দলগুলোর জাতীয় ঐক্যে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও দলটির শীর্ষ নেতাদের মাথা খারাপ হয়ে গেছে। যে কারণে তারা গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের জাতীয় ঐক্য-বিরোধী কথাবার্তা বলছেন।যারা গণতন্ত্র বাক্সবন্দি করেছে, তাদের নিয়ে কি গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের ঐক্য সম্ভব? এ কারণেই জাতীয় ঐক্যে আওয়ামী লীগের থাকার কোনো সুযোগ নেই। বরং এই ঐক্য তাদের বিরুদ্ধেই।

ব্যারিস্টার সাকিলা ফারজানা আজ ১ নং দক্ষিণ পাহাড়তলি ওর্য়াড বিএনপি ,যুবদল,ছাএদলের নেতা কর্মীদের সাথে মতবিনিময় সভায় বক্তব্য কালে এ কথা বলেন।এসময় উপস্থিত ছিলেন বিএনপি নেতাগাজী ইউসুফ, অধ্যাপক ফজলুল কাদেল,সৈয়দ মোহাঃ মহসিন, সৈয়দ ইকবাল,মোঃ সেলিম উদ্দীন,আজম উদ্দীন,মোহাম্মদ ওসমান,মোঃ শাহেদুল আজম,ইয়াহিয়া চৌধুরী জিয়া,কামাল চৌধুরী টিপু,সৈয়দ গিয়াস উদ্দীন লিটন,মোঃ আরাফাত,সৈয়দ নিশাত, মোঃ দেলোয়ার হোসেন প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *