চট্টগ্রাম, , মঙ্গলবার, ২০ আগস্ট ২০১৯

আলাউদ্দিন ডেস্ক কন্ট্রিবিউটর

লোহাগাড়ায় প্রচারণার জোয়ারে প্রার্থীরা, উৎসাহে ভাটা ভোটারদের 

প্রকাশ: ২০১৯-০৩-২০ ১৪:৩৭:৪১ || আপডেট: ২০১৯-০৩-২০ ১৪:৩৭:৪১

আলাউদ্দিন:

আগামী ২৪ মার্চ লোহাগাড়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচনকে সামনে রেখে উপজেলা জুড়ে শুরু হয়েছে চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা প্রার্থীদের প্রচার প্রচারণার হিড়িক। ভোটাররা নীরব থাকলেও বসে নেই চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীরা।

প্রতীক সম্বলিত লিফলেট হাতে প্রার্থীরা ছুটছেন রাত দিন। বিরামহীন ভাবে চলছে তাদের নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণা। প্রতিদিনই দফায় দফায় প্রার্থীদের পক্ষে চলছে ভোট প্রার্থনা।

নিজেদের পক্ষে ভোট টানতে কাজে লাগানো হচ্ছে ভোটারদের আত্নীয়-স্বজনকে। আত্নীয়তার সম্পর্কে তারা ভোট চাইছেন নিজেদের পছন্দের প্রার্থীর পক্ষে। ভোট যুদ্ধে বিজয়ী হতে চালানো হচ্ছে নানা কৌশল।

পুরো উপজেলা জুড়ে চলছে মাইকিং সহ প্রার্থী সমর্থকদের বিরামহীন প্রচারণা। ফেস্টুন, ব্যানার ও পোস্টারে ছেয়ে গেছে লোহাগাড়ার সকল হাট-বাজার থেকে অলিগলি পর্যন্ত।

কিন্তু এবারের নির্বাচনে সাধারণ ভোটারদের মনে নেই তেমন কোন আগ্রহ। ভোট সুষ্ঠু হওয়ার প্রশ্নে কেন্দ্রে যাওয়া না যাওয়া নিয়েও ভোটাররা রয়েছেন দ্বিধাদ্বন্দ্ব। লোহাগাড়ার  বিভিন্ন এলাকার নানা শ্রেণি পেশার মানুষের সাথে কথা বলে উঠে আসে এমন তথ্য।

লোহাগাড়া উপজেলা জামায়াত অধ্যুষিত এলাকা হওয়ায় অনেক জামায়াত পন্থী সাধারণ ভোটারদের দাবি, দলটি ভোটে না আসায় ভোটের আমেজে অনেকটা ভাটা পড়েছে।

এদিকে ভোট দিতে যাবেন কিনা এমন প্রশ্নে লোহাগাড়া উপজেলার বড়হাতিয়া হাটখোলা মুড়া এলাকার ডা: খালেদ দেওয়ান বলেন,  আমরা সাধারণ মানুষ ভোট দিলেই কি না দিলেই কি। ইলেকশন তো হবেই।  আমরা ভোট দিতে না গেলেও  মানুষ ভোট দিয়ে দেয়।’

উপজেলার আধুনগর ইউনিয়নের তরুন ভোটার নায়েব আওলাদ   জানান, ভোট আমাদের নাগরিক অধিকার তাই কেন্দ্রের পরিবেশ সুষ্ঠু হলে ভোট দিতে যাবো।

একই প্রশ্নে লোহাগাড়া সদর এলাকার মাস্টার মহরম মিয়া বলেন, গত সংসদ নির্বাচনে তাদের গ্রামের অনেকেই ভোট দিতে পারেন নি। এ কারণে উপজেলা নির্বাচন নিয়ে এখন পর্যন্ত কোন চিন্তা করেননি তিনি।

অপরদিকে  লোহাগাড়ায় জামায়াতের ব্যাপক ভোট ব্যাংক রয়েছে বলে বরাবরই দাবি করেন দলটির নেতা কর্মীরা। গত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনেও জামায়াত প্রার্থীরা ৩ পদেই চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন। তবে এই নির্বাচনে  তাদের কোন প্রার্থী না থাকায় কে পাচ্ছে তাদের সমর্থন?

এ ব্যাপরে জামায়াত নেতা এডভোকেট  ফরিদ উদ্দিন খাঁন জানান,  দলের কেন্দ্রীয় ঘোষণা অনুযায়ী এবারের নির্বাচনে জামায়াতের কোন প্রার্থী অংশগ্রহন করছেন না।  তাই এই  নিবার্চনে কোন প্রার্থীকে সমর্থন দিবে না বলে নেতা-কর্মী, সমর্থকদের প্রতি দলীয় নির্দেশনা রয়েছে।

এবারে লোহাগাড়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে লড়ছেন, আওয়ামী লীগ দলীয় প্রতীকের প্রার্থী লোহাগাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. খোরশেদ আলম চৌধুরী (নৌকা) স্বতন্ত্র প্রার্থী উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান জিয়াউল হক চৌধুরী বাবুল (আনারস),  স্বতন্ত্র প্রার্থী ছলিম উদ্দিন খোকন চৌধুরী (দোয়াত-কলম), ও মাহামুদুল হক পেয়ারু ( মোটর সাইকেল)।

উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে রয়েছেন, লোহাগাড়া উপজেলা আওয়ামীলীগের উপ- দপ্তর সম্পাদক এম এস মামুন (চশমা) , এম ইব্রাহিম কবির (টিউবওয়েল) ও উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ন আহবায়ক মিজানুর রহমান মিজান (মাইক) আরমান বাবু রোমেল (তালা)।

মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে, লোহাগাড়া উপজেলা মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক নারীনেত্রী জেসমিন আক্তার( ফুটবল) (১), জেসমিন আক্তার,( কলসী) পারভীন আক্তার( প্রজাপতি) ও শাহিন আকতান সানা ( হাসঁ) প্রতীক নিয়ে মাঠে রয়েছেন।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *