চট্টগ্রাম, , বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯

অধীর বড়ুয়া বোয়ালখালী প্রতিনিধি

৭১’এ মৃত্যুর মুখ থেকে ফিরে অাসার ইউসুফের লোমহর্ষক বর্ণনা বোয়ালখালীকে পাকিস্তানী সেনাবাহিনী মৃত্যুপুরী বানিয়েছিল

প্রকাশ: ২০১৯-০৩-২৮ ০০:০২:৩০ || আপডেট: ২০১৯-০৩-২৮ ০০:০২:৩০

 অধীর বড়ুয়া, বোয়ালখালীঃ পাকিস্তানী সেনাবাহিনী ও তাদের দোসররা যুদ্ধকালীন সময়ে বোয়ালখালীতে প্রতিদিন বাংলার তরতাজা প্রাণ অনেক যুবককে হত্যা করে উপজেলা টর্চারসেল,গোমদন্ডী বনখালী ঘাট, কধুরখীল দারোগা বাড়ী, পূর্বকালুরঘাট, মিলিটারীপুলসহ একাধিকস্থানকে মৃত্যুপুরী বানিয়েছিল। গত ২৬ মার্চ প্রায় ৪২ বছর পর কানাডা থেকে দেশ এসে ১৯৭১ সালে যুদ্ধচলাকালীন সময়ে পাকিস্তানী সেনাবাহিনী ও তাদের দোসর কর্তৃক হত্যাযজ্ঞ করা বোয়ালখালী উপজেলার স্থান গুলো পরিদর্শন কালে ঐ সময় হত্যাযজ্ঞ থেকে বেঁচে যাওয়া মুক্তিযোদ্ধা মোঃ ইউসুফ এ কথা বলেন।

তিনি অারো বলেন- পাকিস্তানীদের হাতে অাটক হওয়া যুবকরা পরদিন অারেক বার সূর্য় অস্ত যাবে বা উদিত হবে তা দেখার অাশা করতে পারতো না। তাদের হত্যাযজ্ঞে শহীদ ওয়াজেদসহ শত শত বল ও বীর্যবান যুবকদের প্রাণ দিতে হয়েছে। এছাড়া যুদ্ধচলাকালিন সময়ে অত্যাচারী এ বাহিনীর হাতে প্রতিনিয়ত ইজ্বত ও সম্ভ্রম হারিয়েছে অনেক মা-বোন। এ লোমহর্ষক ঘটনার চিত্র চোখে এখনো ভাসে। পাকিস্তানী এ হিংস্রবাহিনীকে সহায়তাকারী রাজাকাররা যে এখনো দেশে বীরদপে চলছে এ কথা শুনলে বা দেখলে নিজেকে বড় পাপী মনে হয়। এসময় যুদ্ধচলাকালীন শহীদ হওয়া ও বলিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সদস্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- মুক্তিযোদ্ধা মোঃ অাজীজ উদ্দিন কমান্ডার,মুক্তিযোদ্ধা বাহাদুর অালম,মোঃ ছৈয়দ অালম,মুক্তিযোদ্ধা মোঃ কামাল উদ্দিন, মুক্তিযোদ্ধা অাহম্মদ মিয়া, শহীদ ওয়াজেদ এর ছোট বোন মোছাম্মৎ জেবুনেছা, মুক্তিযোদ্ধা হাজী অাবুল কালাম প্রমুখ।

পাকিস্তানী বাহিনীর তান্ডবস্থল কধূরখীল দারোগাবাড়ী, শহীদ ওয়াজেদ এর বাড়ী এলাকা পরিদর্শন করেন তারা। ছবির ক্যাপসনঃ বোয়ালখালীতে ৭১ সালে যুদ্ধচলাকালীন সময়ে পাকিস্তানী সেনাবাহিনী কর্তৃক পরিচালিত টর্চারসেল স্থল পরিদর্শন করছেন শহীদ পরিবারের সদস্য ও মুক্তিযোদ্ধা বৃন্দ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *