চট্টগ্রাম, , সোমবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০

“বীর কণ্ঠ” সম্পাদকের নববর্ষের শুভেচ্ছা

প্রকাশ: ২০১৯-০৪-১৪ ০০:৪১:৪৪ || আপডেট: ২০১৯-০৪-১৪ ০০:৪৬:০৮

“বীর কণ্ঠ” সম্পাদকের নববর্ষের শুভেচ্ছা

বাংলা নববর্ষ ১৪২৬। প্রিয় পাঠক, শুভানুধ্যায়ী ও বীর কণ্ঠ পরিবারসহ সকলকে বাংলা নববর্ষের শুভেচ্ছা।
আমাদের সবার জীবনে বয়ে আসুক অনাবিল সুখ, শান্তি ও সমৃদ্ধি।

নতুন বছরের প্রথম দিনে আমরা অতীতের গ্লানি ভুলে জীবনে এগিয়ে যাওয়ার প্রত্যয় নিয়ে আশায় বুক বাঁধি। দেনা-পাওনা চুকিয়ে নতুন করে শুরু হয় জীবনের জয়গান। পহেলা বৈশাখ তাই যুগ যুগ ধরে বাঙালির মননে-মানসে শুধু বিনোদনের উৎস নয়, বৈষয়িক বিষয়েরও আধার’।

বাংলা নববর্ষ বাঙালী সংস্কৃতির অন্যতম সামাজিক উৎসব । সকল ধর্ম, শ্রেণী ,পেশার বাঙলীর কাছেই প্রিয় এ ঐতিহ্যবাহী উৎসব। বহুযুগ ধরে পহেলা বৈশাখে বাঙালীরা বর্ণাঢ্য আচার আনুষ্ঠানিকতায় বর্ষবরণ উৎসব উদযাপন করে থাকে। গ্রামে-গঞ্জে-নগরে লোকজ ঐতিহ্যমন্ডিত খাবার, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, খেলাধূলা, শোভাযাত্রা ইত্যাদিতে ভরপুর থাকে বর্ষবরণ ‍উৎসব।।

সামাজিক জীবনে আত্মীয়তা-বন্ধুত্বকে প্রগাঢ় করে তুলতে অত্যন্ত সহায়ক ভূমিকা পালন করে পহেলা বৈশাখ । অতিথি পরায়ণ বাঙালী জাতি দাওয়াত ও উপহার দেওয়া নেওয়ার প্রচলিত রীতি রেওয়াজে দিনটিকে আরও অর্থপূর্ণ করে তোলে। পহেলা বৈশাখ ব্যবসায়ী সম্প্রদায় ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের  কাছেও বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ। শুভ হালখাতা’র আয়োজন করেন তাঁরা। ভোক্তা এবং গ্রাহকদের উপহার দেওয়া, মিষ্টিমুখ করানো শুভ হালখাতার অন্যতম লোকাচার। এ উপলক্ষে ব্যবসায়ী সম্প্রদায় হিসেবের নতুন খাতা খোলেন ।  রাষ্ট্রীয়ভাবেও এ দিবসটি বিশেষ গুরুত্বের সাথে উদযাপিত হয় আমাদের দেশে। দিনটি সরকারী ছুটির দিন। তবে ছুটির দিন হলেও  বর্ষবরণ উৎসব উদযাপনে থাকে সরকারী অনু্প্রেরণা ও তাগিদ।

তাই আসুন সব ভেদাভেদ ভূলে নতুন করে শুরু করি জীবনের জয়গান।

কাইছার হামিদ, সম্পাদক- বীর কণ্ঠ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *