চট্টগ্রাম, , শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯

জাহেদুল হক আনোয়ারা প্রতিনিধি

আনোয়ারায় জমে উঠেছে কোরবানির পশুর হাট

প্রকাশ: ২০১৯-০৮-০৬ ২২:১৬:১৯ || আপডেট: ২০১৯-০৮-০৬ ২২:১৬:১৯

জাহেদুল হক,আনোয়ারা :
আনোয়ারায় কোরবানির পশুর হাটগুলো জমে উঠেছে। গত কয়েক দিন হাটগুলোতে প্রচুর পশু উঠলেও বেচাকেনা হয়েছে কম। অনেকটা ক্রেতা-বিক্রেতাদের দরদামের মধ্যে সীমাবদ্ধ ছিল। তবে গত সোমবার থেকে হাটগুলোতে প্রচুর পশু বিক্রি হচ্ছে।
দক্ষিণ চট্টগ্রামের ঐতিহ্যবাহী আনোয়ারার সরকারহাট পশুর বাজার সারাবছর সরগরম থাকে। সপ্তাহের সোম ও শুক্রবার হাটের নির্ধারিত দিন ছাড়াও এখন পুরো সপ্তাহজুড়েই চলছে পশু বেচাকেনা। গত সোমবার সরকারহাট ঘুরে দেখা গেছে,গরু ও ছাগলের পাশাপাশি বাজারে উঠেছে প্রচুর পরিমাণ মহিষ।
বাঁশখালীর পুকুরিয়া গ্রামের আবদুল কাদের বাজারে এনেছেন বড় আকৃতির দুটি ষাঁড়। ষাঁড় দুটির দাম দিয়েছেন ৬ লাখ ৫০ হাজার টাকা। বেশ কয়েক জন ক্রেতা ৫ লাখ টাকা দর করেছেন বলে তিনি জানান।
গরু কিনতে আসা বখতিয়ারপাড়ার আবু সুফিয়ান জানান,গতবারের তুলনায় এবার হাটে অনেক বেশি পরিমাণে দেশি জাতের গরু উঠছে। গরুগুলো দেখতেও খুব সুন্দর। কিন্তু দাম একটু বেশি মনে হচ্ছে।
চট্টগ্রাম নগরীর চান্দগাঁও থেকে গরু কিনতে আসা আলী হায়দার বলেন,আমরা যারা কোরবানি দেই,আমাদের অনেকেরই গরু রাখার জায়গা বা গরু পালার অভিজ্ঞতা নেই। তাই প্রতিবছর ঈদের দুদিন আগেই গরু কিনে থাকি।
সরকারহাটের ইজারাদার জাহাঙ্গীর আলম বলেন,ভারত থেকে গরু না এলেও কোরবানি পশুর এবার সমস্যা হবে না। এ অঞ্চলের খামারিদের যে পরিমাণ গরু আছে,তাতেই চাহিদা মিটবে। ক্রেতা-বিক্রেতার ভিড়ে কেউ যেন প্রতারিত না হয় সেজন্য আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীও সতর্ক অবস্থানে রয়েছে। পাশাপাশি জাল টাকা শনাক্তকরণ মেশিনও রাখা হয়েছে এ বাজারে।
এছাড়া উপজেলার চাতরী চৌমুহনী বাজার,মিন্নত আলী দোভাষী হাট,বটতলী রুস্তম হাটসহ ছোট-বড় পশুর হাটগুলো বেশ জমে উঠেছে।হাট ছাড়াও বিভিন্ন এলাকায় খামারিরা কোরবানির পশু বিক্রি করছে।
গতকাল মঙ্গলবার চাতরী চৌমুহনী বাজার ঘুরে দেখা যায়,অন্য বছরের তুলনায় বাজারে দেশি গরুর পরিমাণ বেশি। ক্রেতাদেরও নজর দেশি গরুর দিকে। এদিকে বড় গরুর চেয়ে ছোট ও মাঝারি আকৃতির গরুর চাহিদা বেশি। তবে দাম বেশি থাকায় মধ্যবিত্ত ও নি¤œবিত্ত মানুষকে হিমশিম খেতে দেখা গেছে।
উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. দেলোয়ার হোসেন জানান,খামারিরা যাতে নিষিদ্ধ ওষুধ ব্যবহার না করে সে বিষয়ে পরামর্শ দেয়া হয়েছে। তাছাড়া প্রতিটি কোরবানির হাট প্রাণিসম্পদ বিভাগ তদারকি করছে।
আনোয়ারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দুলাল মাহমুদ বলেন, কোরবানির হাটে ক্রেতা-বিক্রেতাদের নিরাপত্তা দিতে পুলিশ টহল জোরদার করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *