চট্টগ্রাম, , বুধবার, ২১ অক্টোবর ২০২০

এম মাঈন উদ্দিন মিরসরাই প্রতিনিধি

মিরসরাইয়ে প্রথম করোনা রোগী সনাক্ত! ৯ জনের নমুনা সংগ্রহ

প্রকাশ: ২০২০-০৪-১৯ ২০:৫৪:৪২ || আপডেট: ২০২০-০৪-১৯ ২০:৫৪:৪৪


এম মাঈন উদ্দিন, মিরসরাই:


মিরসরাইয়ে করোনা ভাইরাস (কোভিড- ১৯) আক্রান্ত একজন মহিলা রোগী (৩৩) সনাক্ত হয়েছেন। তিনি উপজেলার খৈয়াছরা ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের নীচতালুক গ্রামের মৌলভী সৈয়দুর রহমান বাড়ির বাসিন্দা। শনিবার (১৮ এপ্রিল) চট্টগ্রাম সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) তার করোনা ভাইরাস ধরা পড়ে। রবিবার (১৯ এপ্রিল) সকালে ওই মহিলার সংস্পর্শে থাকা ৮জন ও এ্যাম্বুলেন্সের ড্রাইভারের নমুনা সংগ্রহ করে চট্টগ্রামের ফৌজদারহাটস্থ বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজেস (বিআইটিআইডি)তে পাটিয়েছে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক টিম। এদিকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা খৈয়াছরা ইউনিয়নের ২টি বাড়ী লকডাউন ও ২টি মুদি দোকান বন্ধ করে দিয়েছেন।
ওই মহিলার ভাসুর (স্বামীর বড় ভাই) জানান, কয়েকদিন ধরে গলা ব্যাথা, কাশিসহ করোনা উপসর্গ দেখা দিলে গত বুধবার তাকে সিএমএইচ হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। এরপর তার শরীর থেকে করোনা পরীক্ষার জন্য নমুনা সংগ্রহ করা হয়। শনিবার রাতে তাকে হাসপাতাল থেকে জানানো হয় তার ছোট ভাইয়ের স্ত্রী করোনায় আক্রান্ত।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি মোহাম্মদ রুহুল আমিন বলেন, শনিবার রাতে ওই মহিলা করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার খবর আমরা জানতে পারি। রবিবার সকালে গিয়ে ওই মহিলার বাড়ী সহ পাশ্ববর্তী ১টি বাড়ি লকডাউন করে দেওয়া হয়েছে। ওই বাড়ীর এক যুবক সকালে খৈয়াছড়া ইউনিয়নের নয়দুয়ার এলাকার ২টি দোকানে কেনাকাটা করতে যাওয়ায় ওই দোকানগুলোও বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা লকডাউন নিশ্চিত করবে। মহিলার সংস্পর্শে থাকা ৮ জন ও এ্যাম্বুলেন্সের চালকের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। তিনি আরো জানান, ওই মহিলার স্বামী যশোর ক্যান্টনমেন্টে কর্মরত ছিলেন। একমাস আগে সে বাড়িতে আসে। এরপর মিশনে চলে যায়। এছাড়া চলতি মাসের ২ তারিখে তিনি মিরসরাই ইসলামী ব্যাংকের এটিএম বুথ থেকে টাকা তুলতে গিয়েছিলেন। ধারণা করা হচ্ছে তার স্বামী অথবা ব্যাংকের তোলা টাকা থেকে তিনি সংক্রামিত হতে পারেন। তবে কিভাবে তিনি করোনায় সংক্রামিত হয়েছেন তা নিশ্চিত হওয়ার চেষ্টা চলছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *