চট্টগ্রাম, , বুধবার, ১ ডিসেম্বর ২০২১

admin

দর্শক মাতিয়ে বেড়াচ্ছেন চট্টগ্রামের শিল্পী শামান্তা

প্রকাশ: ২০২১-০৭-২৯ ১৪:২৭:০৩ || আপডেট: ২০২১-০৭-২৯ ১৪:২৭:০৮

বিনোদন ডেস্ক| শামান্তা শাহীন। মঞ্চ কাঁপানো একজন শিল্পী। মেধা ও সাধনা দিয়ে ধীরে ধীরে জনপ্রিয় হয়ে ওঠেছেন এ শিল্পী। নেট দুনিয়ায় ব্যাপক জনপ্রিয়তা দখল করেছেন। “অনেক কালজয়ী গান” ও “হারানো দিনের গান” নিজ কণ্ঠে গেঁথেছেন। দর্শক প্রশংসায়ও ভেসেছেন শামান্তা শাহীন।

চট্টগ্রামের মেয়ে শামান্তা শাহিন ঢাকায় বসবাস করেন গানের দুনিয়াটাকে বড় করার জন্য। তার অসাধারন গায়কি শক্তি রয়েছে। আধুনিক ও লোকসংগীত চর্চা করেন তিনি। চট্টগ্রাম অঞ্চলের গান সমৃদ্ধ করার প্রতিনিয়ত চেষ্টা করেন এ শিল্পী। ঢাকার দর্শকের কাছে তার গাওয়া “আই চা্টগাইয়া বনফুল” গানটি ব্যাপক প্রশংসা পেয়েছে। এ গানের গীতিকার বেলাল উদ্দিন হৃদয়।

প্রখ্যাত গীতিকার ও সুরকার লিয়াকত আলী বিশ্বাসের “আইসো বন্ধু রবিবারে” গানটি গেয়ে ব্যাপক প্রশংসা কুড়িয়েছেন শামান্তা শাহিন। তাঁর কণ্ঠের জাদু দিয়ে গানটিকে শ্রোতার কাছে পৌঁছে দিয়েছেন। রাতারাতি জনপ্রিয়তা পায়।

ক্লোজআপ ওয়ান তারকা নোলক বাবুর সাথে ডুয়েট করেন শামান্তা শাহীনের নিজের লেখা ও সুর করা “কন্ডে তোঁয়ার বাড়ি” গানটি। নেটদুনিয়ায় মূহুর্তে ভাইরাল হয় এ গান। দশর্কের কাছে হৃদয়গ্রাহী হয় এ গান।

চট্টগ্রাম অঞ্চলে বেশ জনপ্রিয় একটি গান “তালত এ্যন গরি ক্যয়া চঅর”। গানটি ডুয়েট গেয়েছেন গীতিকার, সুরকার ও সঙ্গীতশিল্পী জীবক বড়ুয়া ও শামান্তা শাহীন। এ গানটির গীতিকার ও সুরকার পঙ্কজ চৌধুরী জয়। চট্টগ্রামের প্রত্যন্ত অঞ্চলের সাধারন মানুষের মুখে মুখে এ গান। গুন গুনিয়ে চট্টগ্রামভাষীরা গায়। চৌধুরী নাজমুল হকের লেখা ও মহিদুল হাসানের সুরে “আজিয়া কালিয়া কই কই” গানটিতেও কণ্ঠ দিয়েছেন শামান্তা শাহীন। এ গানেও শামান্তা শাহীন দর্শকের প্রশংসায় পঞ্চমূখ।

এ ছাড়াও শামান্তা শাহীনের ৩০ টিরও অধিক মৌলিক গান রয়েছে। মঞ্চে গান গেয়ে বেশির ভাগ সময় পার করেন। বিভিন্ন সরকারী অনুষ্টানেও গানের ডাক পড়ে তার। মুজিব শতবর্ষ উদযাপন অনুষ্টানেও প্রধানমন্ত্রীর উপস্থিতিতে গান গেয়ে প্রশংসা কুড়িয়েছেন।

শামান্তা শাহীনের সাথে কথা বলে জানা যায়, তিনি প্রখ্যাত গীতিকার ও সুরকার লিয়াকত আলী বিশ্বাস, প্রবাসী গীতিকার ও সুরকার শহীদুল ইসলাম, চট্টগ্রামের স্বনামধন্য গীতিকার ও সুরকার বেলাল উদ্দিন হৃদয়, গীতিকার চৌধুরী নাজমুল হক, গীতিকার ও সুরকার পঙ্কজ চৌধুরী জয়, কলকাতার গীতিকার ও সুরকার ইকবাল খানসহ আরো অনেক গীতিকার ও সুরকারের সুরে রিলিজের অপেক্ষায় রয়েছে তার বেশ কিছু গান।

তিনি মনে করেন, গায়কি একটি গানের প্রধান শক্তি। একজন শিল্পী তাঁর কণ্ঠের জাদু দিয়ে গানকে শ্রোতার কাছে পৌঁছে দেন। গানের বাণী ও সুর যতই উন্নত হোক না কেন, শিল্পীর জ্ঞান, দক্ষতা ও সৃজনশীলতা না থাকলে সে গান হারিয়ে যায়। কিন্তু এ দক্ষতা অর্জনে প্রয়োজন দীর্ঘ সাধনা। আমি চেষ্টা করছি সংগীতের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সবার মেধা, জ্ঞান, দক্ষতা ও সৃজনশীলতার সমন্বয় ঘটিয়ে গান সমৃদ্ধ করার।

একটি গান হয়তো হঠাৎ মন কাড়তে পারে, একজন শিল্পী চট করে জনপ্রিয় হয়ে উঠতে পারেন, কিন্তু মূল উপাদানে ঘাটতি থাকলে সে গান ও সে শিল্পী হারিয়ে যায় অচিরেই। অনেক সংগীতজন স্বল্প পরিশ্রমে দ্রুত জনপ্রিয় হওয়ার প্রয়াস পান, এর জন্য তাঁরা সংগীত চর্চা না করে বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করেন। আমি এমনটা নয়। সঠিক চর্চা করে মানুষের হৃদয়ে জায়গা করে নিতে চাই। এমনটা জানালেন শামান্তা।

ওস্তাদ ভূপতি ধর, ওস্তাদ এ.কে.আজাদ বাবুল, ওস্তাদ বাণী কুমার চৌধুরী, ওস্তাদ ইউনুস আলী মোল্লা, ওস্তাদ রবীন্দ্র সেনসহ আরো অনেকের কাছে গানের তালিম নিয়েছেন তিনি।

গান নিয়ে ভবিষৎ পরিকল্পনার কথা জানতে চাইলে শামান্তা বলেন, গানের জগতে নিজের ভীত মজবুত করতে চাই। জাতশিল্পী হতে চাই। পাশাপাশি আমার প্রাণের চট্টগ্রামের গানকে সমৃদ্ধ করা। চট্টগ্রামের আঞ্চলিক গানকে নতুন আঙ্গিকে বিশ্বের দরবারে পৌঁছে দেওয়া। ভালো কথা সুরের গান শ্রোতাদের কাছে পৌঁছে দেওয়াই আমার ভবিষৎ পরিকল্পনা।

শামান্তার প্রিয় শিল্পী রুনা লায়লা, কনক চাঁপা, সাবিনা ইয়াসমিন, মনির খান, এন্ড্রু কিশোর। এ ছাড়াও কুমার শানু , অলকা ইয়াগনিক, অনুরাধা পাড়োয়াল, ওস্তাদ মেহেদী হাসান, ওস্তাদ গোলাম আলীসহ আরো বিশ্ব বরেণ্য শিল্পীদের গান, গজল, নজম শুনে সময় কাটান।

তিনি দর্শকদের অনুরোধ করেন, ভালো কথা ও সুরের গান গুলো লাইক, কমেন্ট ও শেয়ার করে সবার মাঝে ছড়িয়ে দিন। খারাপ কথা ও সুরের গান এড়িয়ে চলুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *