চট্টগ্রাম, , সোমবার, ২৮ নভেম্বর ২০২২

admin

চট্টগ্রাম দেশের অর্থনীতির লাইফ লাইন,অবহেলার অবকাশ নেই : বাণিজ্যমন্ত্রী

প্রকাশ: ২০২২-০৫-৩১ ২২:০১:৪৫ || আপডেট: ২০২২-০৫-৩১ ২২:০১:৪৯

ডেস্ক রিপোর্ট|
চট্টগ্রাম দেশের অর্থনীতির লাইফ লাইন। দেশের আমদানি-রফতানি নির্ভরশীল চট্টগ্রাম বন্দরকে ঘিরে। তাই চট্টগ্রামকে অবহেলা করার অবকাশ নেই ’বলে মন্তব্য করেছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি।

মঙ্গলবার (৩১ মে) বিকেলে চট্টগ্রাম নগরীর পলোগ্রাউন্ড মাঠে চট্টগ্রাম চেম্বারের মাসব্যাপী সিআইটিএফের উদ্বোধনকালে তিনি আরও বলেন, চট্টগ্রামের ওপর আমাদের নির্ভর করতে হয়। সেই চট্টগ্রামকে আরও গুরুত্ব দেওয়া দরকার। বন্দরকে আপগ্রেড করতে হবে। আশাকরি ৬০ বিলিয়ন ডলার রফতানি করতে পারব এবার। মহাসড়কে ১৩ টনের বাধা পণ্যের ওপর পড়বে। ঢাকা থেকে ট্রেন কক্সবাজার পর্যন্ত যাবে। ১৫ লাখ লোকের কর্মসংস্থান হবে সেই চট্টগ্রাম চাই আমরা ।

টিপু মুনশি বলেন, ২০২৬ সালে মধ্যে বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হবে। বাংলাদেশের অবস্থান পাল্টে গেছে। ১৯৭১ সালের আগে পাকিস্তানের অর্থনীতি আমাদের চেয়ে ৭০ শতাংশ ভালো ছিল। আজকে পাকিস্তানের চেয়ে আমাদের অর্থনীতি ৪০ শতাংশ এগিয়ে। পাকিস্তান থেকে আমরা আজ সব সূচকে এগিয়ে আছি। এমনকি ভারত থেকেও আমরা ছয়টি সূচকে এগিয়ে আছি।

তিনি আরও বলেন, তেলের দাম ভারতে ১৫ টাকা, পাকিস্তানে ৩৬ টাকা বেশি। ১০ শতাংশ তেল হয় দেশে। গম, ডাল আমদানি করতে হয়। আমাদের চেষ্টার ত্রুটি নেই। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে এক কোটি মানুষকে তেল চিনি ছোলা দিয়েছি সাশ্রয়ী মূল্যে। ৫ কোটি মানুষ উপকৃত হচ্ছে। যত দিন পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হয় ততদিন এটি চলবে। ভর্তুকি দিতে হবে।

চট্টগ্রাম চেম্বারের উদ্যোগে আয়োজিত বাণিজ্য মেলায় উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম-১১ আসনের সংসদ সদস্য এম এ লতিফ, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র মো. রেজাউল করিম চৌধুরী ও চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার সালেহ মোহাম্মদ তানভীর ও মেলা কমিটির চেয়ারম্যান এ কে এম আকতার হোসেন।এতে সভাপতিত্ব করেন চট্টগ্রাম চেম্বার সভাপতি মাহবুবুল আলম।

উল্লেখ্য, মাসব্যাপী এই মেলা চলবে সকাল ১০টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত। মেলায় নিজস্ব পণ্য নিয়ে ভারত, থাইল্যান্ড ও ইরানসহ বিভিন্ন দেশের পণ্য প্রদর্শন করা হবে। মেলার আয়তন প্রায় চার লাখ বর্গফুট। এতে ১৭টি প্রিমিয়ার প্যাভিলিয়ন, ৩৩টি প্রিমিয়ার স্টল, ৯৯টি গোল্ড স্টল, ৪৮টি মেগা স্টল, ১৪টি ফুড স্টল, দুটি আলাদা জোন নিয়ে ৩৭০টি স্টলে তিন শতাধিক প্রতিষ্ঠান অংশগ্রহণ করছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *