চট্টগ্রাম, , শনিবার, ১০ ডিসেম্বর ২০২২

admin

পর্যটকে মুখর পাহাড়ি জনপদ

প্রকাশ: ২০২০-০৯-১৯ ১৯:৫৯:২০ || আপডেট: ২০২০-০৯-১৯ ১৯:৫৯:২৬

কাপ্তাই প্রতিনিধি|
শরৎকাল মানেই পাহাড়ের নতুন রূপ। প্রকৃতিসাজে অপার সৌন্দর্যে। তাই এ সময় পাহাড়ে পর্যটকদের আনাগোনাও থাকে বেশি। এরমধ্যে দীর্ঘ ৬ মাস পর খোলা হয়েছে রাঙামাটি জেলার কাপ্তাইয়ের দৃষ্টিনন্দন পর্যটন কেন্দ্র প্যানোরমা জুম রিসোর্ট এন্ড পিকনিক স্পট ও কাপ্তাই রিভার ভিউ পিকনিক স্পট ও রেস্টুরেন্ট।

তবে এখনো বন্ধ কাপ্তাইয়ের ৪টি পর্যটনকেন্দ্র। আনুষ্ঠানিক ঘোষণা আসার আগেই কাপ্তাইয়ে দূরদুরান্ত থেকে ঘুরতে আসছেন ভ্রমণ পিপাসুরা। এরমধ্যেই কাপ্তাইয়ের কয়েকটি ঝর্না আবিষ্কার করেছে ভ্রমণ পিপাসুরা। 

স্থানীয় তথ্যমতে, পর্যটনকেন্দ্রের পাশাপাশি ঝর্না দেখা ও শীতল পানিতে গা ভেজাতে প্রতিদিনই গড়ে ৫’শতাধিক পর্যটক ছুটছেন কাপ্তাই। সরেজমিনে দেখা যায়, প্যানোরমা জুম রিসোর্ট এন্ড পিকনিক স্পট ও কাপ্তাই রিভার ভিউ পিকনিক স্পট ও রেস্টুরেন্ট দীর্ঘদিন পর পর্যটকের আনাগোনায় মুখর হয়ে উঠেছে। তবে এখনো বন্ধ রয়েছে কাপ্তাইয়ের লেক ভিউ, লেক প্যারাডাইস, লেক শো রিসোর্ট এবং প্রশান্তি পিকনিক স্পট এন্ড রেস্টুরেন্ট। বিনোদনকেন্দ্র খোলায় এরইমধ্যে আসতে শুরু করেছেন পর্যটকরা। উপভোগ করছেন প্রকৃতির অপরূপ শোভা। তবে করোনা সংক্রমণ রোধে স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করতে চোখে পড়েছে স্থানীয় প্রশাসনের কঠোর অভিযান।

কাপ্তাই প্রশান্তি পিকনিক স্পট ও রেস্টুরেন্টের পরিচালক মো. নাছির উদ্দিন জানান, এখনো লিখিতভাবে কোন নির্দেশনা না পাওয়ায় বন্ধ প্রশান্তি পার্ক। এরইমধ্যে অনেক পর্যটক আসলেও পর্যটনকেন্দ্রে না খোলায় ফিরতে হচ্ছে মন খারাপ করেই। প্যানোরমা জুম রিসোর্ট এন্ড পিকনিক স্পটে প্রবেশ করতেই চোখে পড়ে মাস্কবিহীন প্রবেশ নিষেধ। মাস্ক না থাকলে আগন্তুক দশনার্থীদের দেয়া হচ্ছে মাস্ক। হ্যান্ড স্যানিটাইজারসহ করা হচ্ছে স্প্রে। 

প্যানোরমা জুম রিসোর্ট এন্ড পিকনিক স্পটের ম্যানেজার মো. সাহিদুর রহমান জানান, কর্ণফুলী নদীর তীরে নয়নাভিরাম স্থানে কাপ্তাই বিজিবি সংলগ্ন আকর্ষণীয় রিসোর্ট ও পিকনিক স্পট এটি। রয়েছে কটেজ, কায়াকিং বোট, ইঞ্জিন বোট, সাংস্কৃতিক মঞ্চ, ট্রেন ভ্রমণ ও ফিশিং কর্নারে মাছ ধরার সুব্যবস্থা। 

কাপ্তাই রিভার ভিউ পিকনিক স্পট ও রেস্টুরেন্টের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আকিদুর রহমান জানান, পাহাড়-নদীর অপরূপ মিতালি দেখতে এখানে ছুটে আসেন পর্যটকরা। রয়েছে লাঞ্চ ও ডিনারের ব্যবস্থা। পর্যটন কেন্দ্র দুটি খোলায় কিছুটা স্বস্তি ফিরেছে পর্যটন সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীদের মাঝে। পর্যটন খাতের সঙ্গে কাপ্তাইয়ে হাজারো পরিবারের কর্মসংস্থান জড়িত। এদিকে পর্যটকের আগমনে রেস্টুরেন্টেও বেড়েছে বিক্রয়ের বাড়তি চাপ। 

চন্দ্রঘোনা থানা অফিসার ইনচার্জ ইকবাল বাহার চৌধুরী জানান, পর্যটন খাতের জন্য কাপ্তাই একটি অন্যতম স্পট। এখানে প্রায়ই হাজারো পর্যটকের আগমন ঘটে। বিশেষ করে চন্দ্রঘোনা থানাধীন ঝর্না দেখতে আসছেন অনেকেই। পর্যটকদের নিরাপত্তায় চন্দ্রঘোনা থানা পুলিশের পক্ষ থেকে সর্বাত্মক ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *