চট্টগ্রাম, , শনিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১

admin

এপ্রিলে ঘর পাবে আরও ৫০ হাজার গৃহহীন, বেড়েছে বাজেট

প্রকাশ: ২০২১-০২-১২ ১০:৩৮:৫২ || আপডেট: ২০২১-০২-১২ ১০:৩৮:৫৮

নিজস্ব প্রতিবেদক |
মুজিববর্ষে প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে সারাদেশে গৃহহীন পরিবারকে ২ শতাংশ জমিসহ পাকা ঘর করে দেয়া হচ্ছে।

ইতোমধ্যে ৭০ হাজার ঘর তৈরি করে হস্তান্তর করা হয়েছে। এপ্রিলের মধ্যে আরও ৫০ হাজার ঘর উদ্বোধন করতে যাচ্ছেন সরকার প্রধান শেখ হাসিনা। এজন্য এক হাজার কোটি টাকা ছাড় দেয়া হয়েছে। তবে এবারে নতুন গৃহনির্মাণের বাজেট ১ লাখ ৭৫ হাজার থেকে বাড়িয়ে ১ লাখ ৯৫ হাজার টাকা করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১১ ফেব্রুয়ারি) প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এক সমন্বয় সভায় এসব বলা হয়। প্রধানমন্ত্রীর ঘর নির্মাণ প্রক্রিয়াকে এগিয়ে নিতে আয়োজিত ওই সভায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব মো. তোফাজ্জল হোসেন মিয়া সভাপতিত্ব করেন।
ভূমি মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মোস্তাফিজুর রহমান, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মোহসীন, প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক মো. মাহবুব হোসেনসহ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এ সভায় উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও সভায় ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রত্যেক বিভাগের কমিশনার, জেলা প্রশাসক ও মাঠ প্রশাসনের কর্মকর্তারা যুক্ত হন।

সভায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব মো. তোফাজ্জল হোসেন মিয়া মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেয়া গুরুত্বপূর্ণ নির্দেশনা প্রদান করেন। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী আজকে নির্দেশনা দিয়েছেন যে, আরও ৫০ হাজার ঘর তৈরি করার জন্য। এজন্য এক হাজার কোটি টাকা ছাড় দেয়া হয়েছে। এটিকে কেন্দ্র করেই আজ আমরা সবাই একত্রিত হলাম।

প্রথম পর্যায়ে গৃহনির্মাণ কার্যক্রমের মানের বিষয়ে সারাদেশে প্রশংসা হয়েছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব বলেন, কাজের গুণগত মান ধরে রাখতে হবে। এক্ষেত্রে কোনো ধরনের অনিয়ম সহ্য করা হবে না।

সমন্বয় সভায় ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত কর্মকর্তাদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব বলেন, এই বছরে আমরা আরও এক লাভ ঘর তৈরি করবো। আমরা এই পর্যায়ে ৫০ হাজার বরাদ্দ দিচ্ছি আজকে। আগামী দুই মাসের মধ্যে আমরা কিন্তু আরও ৫০ হাজার বরাদ্দ দেব। এটা একটা চলমান প্রক্রিয়া।

প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের মো. মাহবুব হোসেন বলেন, এবার আমরা যে ঘর নির্মাণ করবো সেটির ডিজাইনে ছোটখাটো কিছু পরিবর্তন এসেছে। একই সঙ্গে ঘরের বাজেটের ক্ষেত্রেও আসছে পরিবর্তন। প্রধানমন্ত্রী মনে করেছেন, বাজেট একটু বাড়িয়ে দেয়া দরকার। সেজন্য ঘরপ্রতি ২০ হাজার টাকা বাজেট বৃদ্ধি করা হয়েছে।

প্রথম পর্যায়ে প্রতিটি ঘরের জন্য পরিবহন খরচসহ ১ লাখ ৭৫ হাজার টাকা ধরা হয়েছিল। এবার তা বাড়িয়ে ১ লাখ ৯৫ হাজার টাকা করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *