চট্টগ্রাম, , বুধবার, ১৭ আগস্ট ২০২২

Alauddin Lohagara

উন্নয়ন হয়েছে আ’লীগের, জনগণের নয়: আমির খসরু

প্রকাশ: ২০১৮-০৩-২২ ২২:৩৩:১৬ || আপডেট: ২০১৮-০৩-২২ ২২:৩৩:১৬

বীর কণ্ঠ ডেস্ক :

আওয়ামী লীগের দুর্বলতা এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে, তাদের নিরাপত্তার জন্য উন্নয়নের মিছিল করতে হচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী।জাতীয় প্রেসক্লাবের ৩য় তলার কনফারেন্স লাউঞ্জে বৃহস্পতিবার দুপুরেবেগম খালেদা জিয়াকে কারান্তরীণের প্রতিবাদ ও মুক্তির দাবিতে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় এমন মন্তব্য করেন।

সভার আয়োজন করে জিয়া পরিষদ।জিয়া পরিষদ প্রতিষ্ঠার ৩১ বর্ষে পদার্পণ উপলক্ষে আয়োজিত সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে আমির খসরু বলেন, ‘বেগম খালেদা জিয়াকে জেলে পাঠিয়ে তারা (আওয়ামী লীগ) নিজেদের ফাঁদে পড়ে গেছে। এই বিষয়টা পরিষ্কার হয়ে গেছে। কারণ তারা জনগণের ওপর নির্ভরশীল নয়। তাদের নির্ভরশীলতা হচ্ছে জনগণকে বাইরে রেখে, রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস ব্যবহার করে ক্ষমতা দখল করা। জনগণের প্রতি তাদের কোনো আস্থা নেই। সেখানে তারা ধরা পড়ে গেছে, এ জন্য তারা বিভিন্ন ধরনের উন্নয়নের কথা বলছে।’

খসরু বলেন, ‘জীবনে কখনো শুনেছেন উন্নয়নের মিছিল হয়? অর্থাৎ তাদের দুর্বলতা কোন পর্যায়ে গিয়ে পৌঁছেছে! তাদের নিরাপত্তার অবস্থা এমন অবস্থায় গেছে যে, এখন উন্নয়নের মিছিল করতে হচ্ছে! উন্নয়নটা কার হয়েছে? দেশের মানুষ এতো বোকা হয়ে গেছে যে আপনি উন্নয়নের মিছিল করবেন সেটা জনগণ গিলবে, এটা বিশ্বাস করার কোনো কারণ নেই। উন্নয়নটা তাদের (আওয়ামী লীগের) দলের হয়েছে। বাংলাদেশের কোনো উন্নয়ন হয়নি। আওয়ামী লীগ ব্যতীত দেশের সাধারণ মানুষের কোনো উন্নয়ন হয়নি।’

তিনি আরও বলেন, ‘দেশের যে রাস্তাগুলো রয়েছে সেগুলোতে কি চলাচলের অবস্থা আছে? বিদ্যুৎতের দাম সাত গুণ বেড়েছে। গ্যাসের মূল্য তিন গুণ থেকে চার গুণ বেড়েছে। চালের দাম ৭০ টাকা কেজি। সাধারণ মানুষের জীবনের মান কমে গেছে। মানুষের ক্রয় ক্ষমতা কমে গেছে। কর্মসংস্থান নেই। ব্যাংকের টাকা লুট হয়ে যাচ্ছে কোনো বিচার নেই এবং সেই টাকা পূরণ করছে মানুষের করের টাকা দিয়ে। বিদেশে লক্ষ কোটি টাকা পাচার হচ্ছে কোনো বিচার নেই।’

বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়টি দেশের সামনে এবার গণতন্ত্রের মুক্তির হিসেবে চলে এসেছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

সাবেক এই মন্ত্রী বলেন, ‘দেশের মানুষদের গণতন্ত্র, ভোটাধিকার, আইনের শাসনের বাইরে রেখে ক্ষমতা যদি দখল করতে হয়, তাহলে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে জেলের ভেতরে থাকতে হবে, এই হলো তাদের পরিকল্পনা। দেশের জনগণকে যদি মালিকানা ফিরিয়ে দিতে হয় তাহলে বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে হবে।’

আয়োজক সংগঠনের সভাপতি ও বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য কবির মুরাদের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনপির ভাইস-চেয়ারম্যান মো. শাহাজাহান, উপদেষ্টা আব্দুল কুদ্দুস প্রমুখ। –পরিবর্তন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *