চট্টগ্রাম, , বুধবার, ২৯ জুন ২০২২

আবদুল হাকিম রানা পটিয়া প্রতিনিধি

চট্টগ্রাম পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ এর উদ্যোগে  জাতীয় বিদ্যুৎ ও জ্বালানী সপ্তাহ উদ্বোধন

প্রকাশ: ২০১৮-০৯-০৬ ২৩:৫৫:৪৮ || আপডেট: ২০১৮-০৯-০৬ ২৩:৫৫:৪৮

আবদুল হাকিম রানা, বীর কন্ঠ :

পটিয়ায় চট্টগ্রাম পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ এর উদ্যোগে আজ পটিয়ায় বর্ণাঢ্য আয়োজনে জাতীয় বিদ্যুৎ ও জ্বালানী  সপ্তাহ ২০১৮ শুভ উদ্বোধন করা হয়েছে। অর্ণিবান আগামী প্রতিপাদ্য বিষয় নিয়ে আয়োজিত অনুষ্টানে প্রধান অতিথি ছিলেন পটিয়া পৌরসভার মেয়র অধ্যাপক হারুনুর রশীদ।

এতে উদ্বোধন উপলক্ষে গ্রাহক ও সদস্যদের সাথে আয়োজিত মতবিনিময় সভায় সভাপতিত্ব করেন জেনারেল ম্যানেজার আবু বক্কর সিদ্দীকী, বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন পটিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্র্মকতা মো. রাসেলুল কাদের, সমিতি বোর্ডের সাবেক সভাপতি আলমগীর খালেদ, আরো বক্তব্য রাখেন ডিজিএম (কারিগরী)  মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরী, এজিএম মোহাম্মদ শামিম খান প্রমুখ। এতে বক্তারা বলেন, চট্টগ্রাম পল্লী বিদ্যুৎ-১ এর অধীনে ৩ টি উপজেলা ইতিমধ্যে শতভাগ বিদ্যুতায়ন সম্পন্ন হয়েছে। এর মধ্যে পটিয়া অন্যতম। এছাড়া ও দ্রুততম সময়ের মধ্যে সমিতি বাকী ৫ টির শতভাগ বিদ্যুতায়নের কাজ নিরবিচ্ছিন্ন ভাবে চালিয়ে যাচ্ছে। আশা করা হচ্ছে চলতি বছরের অবশিষ্ট সময়ে এ লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করা সম্ভব হবে। এতে বলা সমিতি শুধু শতভাগ বিদ্যুতায়নেই সিমাবদ্ধ থাকবে না। নিরবিচ্ছিন্ন এবং গুনগত মান সম্পন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ নিশ্চিত্ব করতে বদ্ধ পরিকর। তারা এ ব্যাপারে সকলের সহযোগিতা কামনা করে বলা হয়, সমিতি গ্রাহকদের সুবিধার্থে এখন নতুন সংযোগ প্রদানে অবারিত সুযোগ সৃষ্টি করেছে। এর ফলে গ্রাহকরা ঘরে বসেই অনলাইনে বিদ্যুৎ সংযোগের জন্য আবেদন করতে পারবে। এতে সিরিয়াল মোতাবেক গ্রাহকরা যেমন সংযোগ পাবে তেমনি হয়রানীর হাত থেকে ও রক্ষা পাবে। আগামী শনিবার এ সপ্তাহের সমাপনী অনুষ্টান অনুষ্টিত হবে। এতে প্রধান অতিথি থাকবেন পটিয়ার সাংসদ আলহাজ্ব সামশুল হক চৌধুরী। উল্লেখ্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ একযোগে সারা দেশে এ কর্মসূচি উদ্বোধন করেন। জানা যায়, চট্টগ্রাম পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ তার আওতাধীন এলাকায় এ পর্যন্ত ৪ লক্ষ ৪৩ হাজার সংযোগ প্রদান করা হয়েছে। এছাড়া ও সিস্টেম লস কমিয়ে সেবার ক্ষেত্রে সমিতি ব্যাপক সাফল্য অর্জন করেছে। যেমন ২০০৮ সালে সিস্টেম লস ছিল ১৫.০৪% যা কমে বর্তমানে তা দাড়িয়েছে ১১.৯৩%। এজন্য সমিতি গ্রাহক সেবায় আন্তর্জাতিক মান অর্জন করায় ইতিমধ্যে  আইএসও সনদ অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে। সভায় বলা হয় বিদ্যুৎ গ্রহনের সক্ষমতা পূর্বের তুলনায় অনেকাংশে বৃদ্ধি পেয়েছে। পূর্বে যেখানে সমিতি বিদ্যুৎ গ্রহন করতো ৮৫ মেগাওয়াট সেখানে এখন প্রযুক্তিগত উন্নয়নের ফলে তা বেড়ে সমিতি গ্রহন করছে ১৮৫ মেগাওয়াট। পূর্বে এ সমিতির বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইন ছিল ৪ হাজার ১শত ৯৯ কিলোমিটার, এখন তা দাড়িয়েছে ৭ হাজার তিনশত ২৯ কিলোমিটার। এতে বিদ্যুৎ ক্ষেত্রে সরকারের ব্যাপক সাফল্যের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি বিশেষ কৃতজ্ঞতা জানানো হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *