চট্টগ্রাম, , শনিবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯

আবদুল হাকিম রানা পটিয়া প্রতিনিধি

বিএনপি-জামায়াত সরকার কওমী সনদের নামে তাদের ব্যবহার করেছে : পটিয়ার জিরি মাদ্রাসায় -ধর্মপ্রতিমন্ত্রী

প্রকাশ: ২০১৯-০৩-৩০ ০১:০৯:১৩ || আপডেট: ২০১৯-০৩-৩০ ০১:০৯:১৩

আবদুল হাকিম রানা, বীর কন্ঠ : ধর্মপ্রতিমন্ত্রী এডভোকেট শেখ আবদুল্লাহ বলেছেন, স্বাধীনতার পরে কোন সরকার কওমী আলেমদের দাওরা হাদিসের মাস্টার্স এর সমমর্যাদার কোনো স্বীকৃতি দেয়নি। একমাত্র জাতির পিতার কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পরই কওমী সনদের স্বীকৃতি প্রদান করা হয়েছে। তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে একজন দ্বীনদার পরহেজগার নারী হিসেবে তুলে ধরে বলেন, তিনি ইসলামের বিধি বিধান সব সময় পালন করেন। যার কারণে আল্লাহর রহমত বাংলার জমিনে বর্ষিত হচ্ছে। প্রতিমন্ত্রী কওমী শিক্ষার্থীদের প্রশংসা করে বলেন, ছোটকালে কওমী মাদ্রাসায় পড়াশোনা করে তিনি দ্বীনি শিক্ষায় শিক্ষিত হয়েছেন।

কওমী মাদ্রাসায় যারা পড়াশোনা করে তারা প্রচুর জ্ঞান অর্জন করেন। যা অন্য কোন সাধারন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সম্ভব হয় না। বিএনপি-জামায়াত-শিবির চক্র কওমী সনদ দেয়ার কথা বলে কওমীদের সবসময় ব্যবহার করেছে। কিন্তু কখনো কওমী শিক্ষা ও সনদের স্বীকৃতি দেয়নি। তাই আজ বাংলাদেশে কওমী মাদ্রাসার দাওরায়ে হাদিসকে যেমন মাস্টার্স এর সমমর্যাদা দেওয়া হয়েছে তেমনি কওমী মাদ্রাসা গুলোকে আধুনিক শিক্ষায় শিক্ষার আওতায় নিয়ে আসতে সরকার নানা পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। যার ধারাবাহিকতায় তিনি মন্ত্রীত্ব পাওয়ার পর দশটি কওমী মাদ্রাসা পরিদর্শনের পরিকল্পনা নিয়েছিলেন। তার অংশ হিসেবে জিরি মাদ্রাসায় দাওরায়ে হাদীসের সমাপনী পাঠদান ও খতমে বোখারী শরীফে অংশগ্রহন করেন গতকাল।

শুক্রবার বিকেলে পটিয়ার আল জামেয়াতুল আরাবিয়াতুল ইসলামিয়া জিরি মাদ্রাসার দাওরায়ে হাদীসের সমাপনী পাঠদান অনুষ্ঠান উপলক্ষে ৯৮ তম খতমে বোখারী শরীফ ও এজলাহী জোড়ে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ আবদুল্লাহ উপরোক্ত বক্তব্য রাখেন। মাদ্রাসার মহাপরিচালক আল্লামা শাহ্ মোহাম্মদ তৈয়ব’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন জাতীয় সংসদের হুইপ ও পটিয়ার সংসদ সদস্য সামশুল হক চৌধুরী, কেডিএস গ্রুপের চেয়ারম্যান খলিলুর রহমান, চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুস সালাম, মাদ্রাসা পরিচালক মাওলানা খোবাইবের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন, পটিয়া উপজেলা পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান মোতাহেরুল ইসলাম চৌধুরী, মীর গ্রপের চেয়ারম্যান আবদুস ছালাম, পটিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হাবিবুল হাসান, পটিয়া সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জসিম উদ্দিন খাঁন, পটিয়া থানার ওসি শেখ মো: নেয়ামত উল্লাহ, রাজশাহী দারুল উলুম হেদায়া মাদ্রাসার পরিচালক আল্লামা শরিফ উদ্দিন, ফুলকলির পরিচালক জহির উদ্দিন, আল বারাকা গ্রুপের চেয়ারম্যান এনামুল হক, আজিমুল হক প্রমুখ।

আলোচনা সভা শেষে আখেরী মুনাজাত পরিচালনা করেন পটিয়া আল জামেয়াতুল আরাবিয়াতুল ইসলামিয়া জিরি মাদ্রাসার মহাপরিচালক পীরে কামেল আল্লামা শাহ্ মোহাম্মদ তৈয়ব। এতে হুইপ সামশুল হক চৌধুরী বলেন, শেখ হাসিনার সরকার শিক্ষা ব্যবস্থার আধুনিকায়নে কাজ করে যাচ্ছে। এজন্য তিনি কওমী মাদ্রাসার দাওরায়ে হাদিসকে মাস্টার্স এর সমমর্যাদা দিয়েছেন। বিভিন্ন সময়ে এদেশের বিএনপি জামাত রাষ্ট্র ক্ষমতায় ছিল। তারা কওমী মাদ্রাসাকে রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতির আশ্বাস দিয়েও কোনো কাজ করেনি। তাই বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *