চট্টগ্রাম, , সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯

বেলাল আহমদ বিশেষ প্রতিনিধি

লামায় সড়ক দুর্ঘটনা রোধে শিক্ষার্থীদের সংবাদ সম্মেলন-স্মারকলিপি প্রদান

প্রকাশ: ২০১৯-০৮-১৯ ১৮:২৬:১৯ || আপডেট: ২০১৯-০৮-১৯ ১৮:২৬:১৯

 

বেলাল আহমদ,বান্দরবান প্রতিনিধি:
বান্দরবানের লামা উপজেলা থেকে চট্টগ্রাম পর্যন্ত সরাসরি বাস সার্ভিস চালু ও লামা-চকরিয়া সড়কে দুর্ঘটনা রোধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের দাবী জানিয়ে সংবাদ সম্মেলন ও স্মারকলিপি দিয়েছে শিক্ষার্থীরা। সোমবার দুপুরে শিক্ষার্থীদের একটি প্রতিনিধি দল লামা উপজেলা নির্বাহী অফিসার নূর-এ জান্নাত রুমির হাতে এই স্মারকলিপি তুলে দেন। এছাড়া রবিবার দুপুরে লামা বাজারস্থ কুটুমবাড়ি রেস্টুরেন্টের ২য় তলায় স্থানীয় সাংবাদিকদের নিয়ে এক সংবাদ সম্মেলন করে চট্টগ্রাম ও ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন কলেজে অধ্যয়নরত লামা উপজেলার শিক্ষার্থীরা।
তিনটি দাবী উত্থাপন করে বান্দরবান জেলা প্রশাসকের বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান করেছে শিক্ষার্থীদের প্রতিনিধি দল। দাবী গুলো হল, লামা-চট্টগ্রাম পর্যন্ত সরাসরি বাস সার্ভিস চালুকরণ, লামা-চকরিয়া সড়কে ফিটনেস বিহীন গাড়ি নিষিদ্ধকরণ এবং ড্রাইভিং লাইসেন্স বিহীন, অপেশাদার চালক দ্বারা গাড়ি চালনা বন্ধ ও দুর্ঘটনাপ্রবণ এলাকা চিহ্নিতকরণ এবং যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার নূর-এ জান্নাত বলেন, বান্দরবান জেলা প্রশাসকের বরাবরে লামার সাধারণ শিক্ষার্থীদের দেয়া স্মারকলিপি আমরা পেয়েছি। স্মারকলিপি দ্রুত জেলা প্রশাসনের কাছে পাঠানো হবে। এছাড়া সড়কে দুর্ঘটনারোধে, সচেতনতা বৃদ্ধি ও ট্রাফিক আইন মেনে চলতে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ হতে প্রায় মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হয়ে থাকে।
অপরদিকে রোববার দুপুরে করা সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন চট্টগ্রামে অধ্যয়নরত কলেজ শিক্ষার্থী রুবেল হাসান। এ সময় ফয়সাল আহমেদ, আবদুর নুর তুষার, কামরুল মোস্তফা মাসুদ, ইলিয়াছ পারভেজ, ছোটন কান্তি নাথ, নুর মোহাম্মদ, আক্তার হামিদ, আবু আহসান, আশিকুল ইসলাম, জাহেদুল ইসলাম ফয়সাল সহ অর্ধ শতাধিক শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন।
লিখিত বক্তব্যে শিক্ষার্থীরা বলেন, বান্দরবানের সবচেয়ে জনবহুল ও গুরুত্বপূর্ণ উপজেলা লামা। এখানে সবচেয়ে বেশি রাবার বাগান, ফসলের মাঠ, সবজি ক্ষেত ও হর্টিকালচার বাগান রয়েছে। ব্যবসা বাণিজ্য, শিক্ষা ও আর্থ সামাজিক উন্নয়নে লামা উপজেলাবাসী অনেকাংশে এগিয়ে যাচ্ছে।
শুধুমাত্র পরিবহন সেক্টরে নানাবিদ প্রতিবন্ধকতার কারণে কাঙ্খিত উন্নয়ন ব্যহত হচ্ছে। ৩০/৪০ বছরের পুরনো বাস ও জীপ গুলো দিয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে লামাবাসীকে লামা-চকরিয়া হয়ে চট্টগ্রাম যাতায়াত করতে হয়। এসব পুরনো গাড়ি এবং অদক্ষ চালকের কারণে প্রতি বছর অর্ধ শতাধিক দুর্ঘটনা সংঘটিত হচ্ছে।
২০১৬ সাল থেকে ২০১৯ সালের আগস্ট মাস পর্যন্ত লামা-চকরিয়া সড়কে ১৬৬টি দুর্ঘটনা ঘটে। এতে ৫৮জন নিহত ও আহত হন সহস্রাধিক। দিন দিন এ দুর্ঘটনা বাড়ার কারণে নিহতের সংখ্যাও বেড়ে চলেছে। তাই পরিবহন সেক্টরে প্রতিবন্ধকতা দূরীকরণে আমরা বান্দরবান জেলা প্রশাসকের সহায়তা কামনা করছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *