চট্টগ্রাম, , মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর ২০২০

এম মাঈন উদ্দিন মিরসরাই প্রতিনিধি

চালের উৎস খুজছে প্রশাসন, সন্দেহে দুই আড়ৎদার

প্রকাশ: ২০২০-০৪-১৩ ২০:৪৮:৩৪ || আপডেট: ২০২০-০৪-১৩ ২০:৪৮:৩৭

মিরসরাই প্রতিনিধি, বীর কন্ঠ : মিরসরাইয়ে ওএমএসের এক বস্তা চাউলসহ আটক হওয়া দোকান কর্মচারী ভাস্কর দাশ বাবুর দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে গভীর তদন্তে নেমেছে স্থানীয় জোরারগঞ্জ থানা পুলিশ। তারা চাউল আত্মসাতের সাথে বড় কোন সিন্ডিকেট জড়িত থাকতে পারে বলে সন্দেহ করছে। বিশেষ করে স্থানীয় দু’জন আড়তদারকে এ সন্দেহের তালিকায় রাখা হয়েছে।

জানা গেছে, সোমবার (১৩ এপ্রিল) সকালে উপজেলার দুর্গাপুর ইউনিয়নের চৈতন্যার হাট বাজারের জননী স্টোরে অভিযান চালিয়ে এক বস্তা ওএমএসর চাল বিক্রির অভিযোগে ভাস্কর দাশ বাবু নামে এক দোকান কর্মচারীকে আটক করে যৌথ বাহিনী। এরপর তাকে স্থানীয় জোরারগঞ্জ থানা পুলিশের হাতে সোপর্দ করা হয়। অবশ্য এসময় দোকান মালিক বেনু তোষ পাল দোকানে না থাকায় তাকে আটক করা যায়নি।

মিরসরাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ রুহুল আমিন বলেন, ‘ওএমএসের চাল আত্মসাৎ ফৌজদারী অপরাধ হওয়ায় উপজেলা খাদ্য কর্মকর্তা বাদী হয়ে জোরারগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করবেন। পুলিশের তদন্তে প্রকৃত ঘটনা উদ্ঘাটন হবে।’ এদিকে জননী স্টোরের মালিক বেণু তোষ পাল বিষয়টিকে তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র বলে এ প্রতিবেদকের কাছে দাবি করেছেন। এসময় তিনি বলেন, ‘আমি কয়েকদিন আগে বেশ কিছু চাউল ক্রয় করেছি জোরারগঞ্জের হাজী স্টোর ও বারইয়াহাটের আব্দুলহাই সরকার সওদাগরের আড়ত থেকে। এ এক বস্তা চাউল কিভাবে ওএমএসের হল আমার জানা নেই। আমার মনে হচ্ছে স্থানীয়ভাবে আমার বিরুদ্ধে কেউ ষড়যন্ত্র করছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *