চট্টগ্রাম, , সোমবার, ২৮ নভেম্বর ২০২২

admin

মানবাধিকার বিকাশ, বর্তমান চিত্র এবং করণীয়

প্রকাশ: ২০১৯-১২-১০ ১৪:২০:৩৫ || আপডেট: ২০১৯-১২-১০ ১৪:২০:৪২

বেলাল উদ্দিন চৌধুরী:

চারদিকে ছেলেধরার গল্প শুনা যাচ্ছে। স্কুলের পাশে সন্তানকে নিতে আসা মা’কে দেখে ছেলেধরা সন্দেহে পিঠিয়ে হত্যা করল। সরকারী হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে গিয়ে চিকিৎসা পাচ্ছে না অসহায় বৃদ্ধা। আবার বেসরকারি ক্লিনিকে টাকার অভাবে চিকিৎসা হয় না কিংবা হাসপাতালের বিল দিতে না পারায় মৃত সন্তানের লাশ রেখে চলে যায় মা।

স্বাধীনতার ৪৮বছর পর এসেও আমাদের ইউনিফর্ম বিহীন পুলিশ সমাবেশ থেকে অস্ত্র উঁচিয়ে, শার্টের কলার ধরে টেনে হিছড়ে নিয়ে যাচ্ছে থানায়। দন্ডভোগ শেষে প্রমান হচ্ছে, দন্ডিত আসামী অপরাধ করেনি। অভিযুক্ত ব্যাক্তিকে আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ না দিয়ে ধরে নিয়ে গিয়ে গুলি করে হত্যা করে “বন্ধুকযুদ্ধ” বলে চালিয়ে দেওয়া।এভাবেই প্রতিনিয়ত আমাদের মানবাধিকার লঙ্ঘন হচ্ছে।

সাধারণত একজন মানুষের যে সকল অধিকার ভোগ অপরিহার্য সেগুলোকে মানবাধিকার বলে। মানবাধিকারই হচ্ছে মানুষের মৌলিক অধিকার। যেটি মানব পরিবারের সকল সদস্যের জন্য সার্বজনীন, সহজাত, অহস্তান্তরযোগ্য এবং অলঙ্ঘনীয় অধিকার। মানবাধিকার প্রতিটা মানুষের জন্মগত ও অবিচ্ছেদ্য অধিকার। এ অধিকার নানা ধর্মে স্বীকৃতির পাশাপাশি মানবসৃষ্ট জাতীয় ও আন্তর্জাতিক আইনেও অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ অধিকার হিসেবে স্বীকৃত হয়েছে। মানবাধিকার লঙ্ঘিত হলে বিচার পাওয়ার অধিকার না থাকলে অন্য সব অধিকার মূল্যহীন হয়ে যায় বরং অন্যসব অধিকার মানবাধিকারকে প্রতিষ্ঠা করতেই সহযোগিতা করে।

আমাদের চারপাশে কখনো মানবাধিকার লঙ্ঘন হয় আবার কখনো ভূলন্ঠিত হয়। এই লঙ্ঘন আমরা সবাই করছি। ইচ্ছাকৃতভাবে হোক কিংবা অজান্তেই হোক আমরা নাগরিকেরা, আমাদের সরকার, প্রশাসন কিংবা আদালত মানবাধিকার লঙ্ঘনের মহোৎসবে মেতে উঠি।

মানবাধিকারকে ভিত্তি করেই আমাদের সংবিধানের ২য় ও ৩য় ভাগে রাষ্ট্র পরিচালনার মূলনীতি এবং মৌলিক অধিকার গুলো যুক্ত করেছিলেন। এছাড়া আন্তর্জাতিক আইনের মধ্যে Universal Declaration of Human Rights,1948, International Covenant on Civil and Political Rights ( ICCPR), International Covenant on Economic, Social and Cultural Rights (ICESCR) এ বাংলাদেশ সাইন করেছেন। মানবাধিকারকে গুরুত্ব দিয়েই জাতীয় সকল আইনের প্রভিশন গুলো তৈরি। তারপরও একবিংশ শতাব্দীর এই সময়ে এসে মানবাধিকার ভিক্ষা চেয়ে আজও আমাদের চোখের পানি ফেলতে হয় কেন?

আমাদের আইনে মানবাধিকার যেভাবে স্থান পেয়েছে মনে ও কর্মকান্ডে সেভাবে পায়নি। আমরা মানবাধিকার বলতে শুধু নিজের অধিকারের কথা মনে রেখে বাকীদের কথা ভূলে যাচ্ছি। অথচ চলতে ফিরতে আমরা বিভিন্নভাবে আরেকজনের মানবাধিকার হত্যা করি। তাই সর্বক্ষেত্রে মানবাধিকার বাস্তবায়নে আইনে সংরক্ষিত না রেখে নিজেদের কর্মকান্ডে মানবাধিকার চর্চা করাই জরুরি।

লেখক: বেলাল উদ্দিন চৌধুরী, এলএল.বি (অনার্স)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *