চট্টগ্রাম, , মঙ্গলবার, ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১

admin

লোহাগাড়ায় পালিয়ে বেড়াচ্ছেন নবদম্পতি, নিরাপত্তাহীনতায় ছেলের পরিবার

প্রকাশ: ২০২১-০১-০৪ ১০:৫৫:৪৮ || আপডেট: ২০২১-০১-০৪ ১০:৫৫:৫৪

ডেস্ক রিপোর্ট:   চট্টগ্রামের লোহাগাড়ায় ভালোবেসে বিয়ে করে ঘরছাড়া হয়েছেন জহির-ইসরাত নামে এক নবদম্পতি। মেয়ের বাবা স্থানীয় প্রভাবশালী হওয়াতে কলেজের পড়ুয়া এই দম্পতির জীবন হুমকিতে। আর ছেলের পরিবারের সদস্যদের পুলিশি হয়রানি করা হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ফলে দিশেহারা হয়ে সরকারের সংশ্লিষ্টদের কাছে পুরো পরিবার চেয়েছেন জীবনের নিরাপত্তা।

এদিকে, এ ঘটনায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা নীরব ভূমিকা পালন করায় স্থানীয়রা ক্ষোভ প্রকাশ করছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।  নবদম্পতির দাবি, দীর্ঘদিন প্রেমের পর সম্প্রতি দুজন বিয়ে করেছেন। কিন্তু মেয়ের বাবা প্রভাবশালী হওয়াতে কোনভাবেই তাদের এ বিয়ে মেনে নেয়নি। বরং উল্টো ছেলের বাড়িতে পুলিশ নিয়ে গিয়ে তার পুরো পরিবারকে মামলা-হামলার ভয় দেখাচ্ছেন। তাছাড়া নবদম্পতি এখন ঘরছাড়া। পালিয়ে বেড়াচ্ছেন এখান থেকে ওখানে। এতে পুরো পরিবারের সদস্যরা আতঙ্কিত হয়ে মানবেতার জীবন-যাপন করছেন এবং আর নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন নবদম্পতি।  জানা গেছে, লোহাগাড়া উপজেলার আব্দুল জব্বারের কলেজ পড়ুয়া ছেলে জহিরুল ইসলামের (২২) সঙ্গে পাশের সরকার পাড়ার মুহাম্মদ মোজাম্মেলের কন্যা ইসরাত জাহানের (২১) দীর্ঘদিনের প্রেমের সর্ম্পক ছিল। পরবর্তীতে গত ২৬ ডিসেম্বর শরীয়ত মোতাবেক ৭ লাখ টাকা কাবিনের মাধ্যমে কোর্ট ম্যারেজ করেন। বিষয়টি মেয়ের প্রভাবশালী বাবা জানতে পারলে ছেলের পরিবারের সদস্যদের পুলিশ দিয়ে হুমকি দিয়ে আসছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। তাছাড়া নবদম্পতি এখন ঘরছাড়া।

এই বিষয়ে ইসরাত জাহান বলেন, আমরা উভয়ই প্রাপ্তবয়স্ক। ভালো-মন্দ বুঝার বয়স আমার হয়েছে এবং আমরা একে অপরকে ভালবেসে স্বেচ্ছায় ও সজ্ঞানে বিয়ে করেছি। আমাকে কেউ এই বিষয়ে জোর-জবরদস্তি করেনি।  তিনি আরও বলেন, আমি সুস্থ মস্তিস্কে সম্পূর্ণ নিজ ইচ্ছায় জহিরকে বিয়ে করে স্বামী হিসাবে গ্রহণ করেছি। আমরা আমাদের মত বাচঁতে চাই। আমার বাবা এলাকার কিছু দুষ্ট লোকের পাল্লায় পড়ে আমাদের প্রতি প্রসাশন নিয়ে এই অন্যায়গুলো করছে।

তিনি বলেন, বাবাকে আমি অনেক বুঝিয়েছিলাম কিন্তু উনি আমাদের বিষয়টি মেনে নেননি।  উল্টো আমাকে অমানুষিক নির্যাতন করছেন। এতে করে আমরা নিজেরা বিয়ে করতে ব্যধ্য হয়েছি। আমরা এখন আমার বাবা ও প্রসাশনের ভয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছি আমরা। বর্তমানে আমরা নিরাপত্তাহীনতা ভুগছি। আমি ও আমার স্বামী শাশুর বাড়িতে যেতে পরছিনা।  এ বিষয়ে ছেলে মা রেনু আক্তার বলেন, তারা দুজনে একে অপরকে পছন্দ করতেন। বিষয়টি আমাদের জানালে আমরা মেনে নিয়েছিলাম। কিন্তু মেয়ের বাবা তা মানতে পারেননি। আমি নিজে গিয়েও বাবা ও পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলেছি কিন্তু তারা কোনভাবে রাজি হননি। সম্প্রতি তারা কাউকে না জানিয়ে বিয়ে করেছেন। ফলে তারা এখন ঘরছাড়া আর আমরা প্রভাবশালী বাবা ও পুলিশের হুমকিতে নিরাপত্তহীনতায় আছি।  

এ বিষয়ে লোহাগাড়া থানার তদন্ত কর্মকর্তা রাশেদুল ইসলাম কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি।  তবে স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিরা জানান, ৫-৬ বছর যাবৎ তাদের সর্ম্পকের পর সম্প্রতি বিয়ে করেন। এতে কোন দোষের কিছু নেই। মেয়ের বাবার পক্ষ থেকে এ ধরনের হুমকি না দেয়ার জন্য তারা পরাামর্শ প্রদান করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *